Opu Hasnat

আজ ২৩ অক্টোবর বুধবার ২০১৯,

ফরিদপুরের একটি মন্দিরে সাজঁছে ২৫২টি প্রতিমা! ফরিদপুর

ফরিদপুরের একটি মন্দিরে সাজঁছে ২৫২টি প্রতিমা!

হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব হলো শারদীয়া দূর্গাপূজা। দূর্গা পূজার আয়োজনে দেশের সবচেয়ে বেশী পূজার আয়োজন হয় যেকয়টি জেলা তার মধ্যে ফরিদপুর একটি অন্যতম নাম। আর দূর্গাপূজা উপলক্ষে এখানে হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে চলছে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দিপনা। পূজা উপলক্ষে জেলার ৭৫০টি মন্দিরে মন্দিরে চলছে দো-মাটির কাজ শেষে রং তুলির প্রথার্মধের কাজ। জেলার পাল সম্প্রদায়ের কারিগররা এখন রাতদিন ব্যস্ত প্রতিমা ফুটিয়ে তোলার কাজে।

২৮ সেপ্টেম্বর শনিবার মহালয়ার মধ্যে দিয়ে শারদীয়া দূর্গোৎসবের শুভ সূচনা হবে। এরপর ০৩ অক্টোবর বৃহস্পতিবার হবে দূর্গার বোধন ৪ অক্টোবর শুক্রবার মহা ষষ্ঠীর মধ্যে দিয়ে শুরু হবে পূজার মূল আনুষ্ঠানিকতা যা শেষ হবে ০৮ অক্টোবর মঙ্গলবার দশমীতে দেবীর বিসর্জনের মধ্যে দিয়ে।   

এরই মাঝে জেলার প্রতিটি মন্দির সাজতে শুরু করেছে নানা আয়োজন নিয়ে। ফরিদপুরের সদর উপজেলার চাদঁপুর ইউনিয়নের ধোপাডাঙ্গা এলাকার সিআইপি ড. যশোদা জীবন দেবনাথের বাড়িতে বৃহৎ পরিসরে ২৫২টি প্রতিমা নিয়ে দুর্গোৎসব অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। সত্য, ত্রেতা, দ্বাপর ও কলি এই ৪টি যুগের পৌরাণিক কাহিনী মহা ভারত ও রামায়ণের গল্পকথা যেন মূর্ত হয়ে উঠেবে ফরিদপুরের ধোপাডাঙ্গার যশোদা জীবন দেবনাথের বাড়ির দুর্গোৎসবে। এখানে দেবী দুর্গার প্রতিমা ছাড়াও স্থান পাবে প্রায় আড়াইশ প্রতিমা। এখানে মৃৎশিল্পীরা তিন মাস ধরে রাত-দিন পরিশ্রম করে রামায়ণ ও মহা ভারতের কাহিনীকে যেন বাস্তবে নামিয়ে আনার কাজে এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন। ব্যতিক্রমী এই পূজার আয়োজন দেখতে পূজার আগে থেকেই এখন দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসছেন দর্শনার্থীরা। এছাড়াও ফরিদপুর শহরের টেপাখোলা শরৎ সাহার বাড়ী, পুরাতন বাসষ্টান্ডের দুটি পূজা, কাসার পট্্ির, সোনার পট্রি, শিবরামপুরের তপন ডাক্তারের বাড়ীর পূজা সাজছে নানা আয়োজন নিয়ে।  

যশোদা জীবন দেবনাথের বাড়ির প্রতিমাশিল্পী মলয় বিশ্বাস হৃদয় জানান, তিন মাস ধরে রামায়ণ ও মহা ভারতের মূল কাহিনী ফুটিয়ে তুলে ধরার কাজ করা হচ্ছে দেশ সেরা কয়েকটি পূজার মধ্যে এই যশোদা জীবন দেবনাথের বাড়ীতে। তিনি বলেন আশার করছি আমরা মহা ষষ্ঠীর আগের দিন সম্পন্ন করা হবে প্রতিমা তৈরি ও মন্ডপের সাজসজ্জ্বার কাজ।  

পূজার প্রধান আয়োজক ড. যশোদা জীবন দেবনাথ সিআইপি জানান, দেবী দুর্গা, কার্তিক, গণেশসহ ছাড়াও প্রায় আড়াইশ প্রতিমা স্থাপনের মাধ্যমে দেশের অন্যতম বড় পরিসরে দুর্গাপূজার আয়োজন করা হচ্ছে। তিনি বলেন, আমরা আশা করছি এই পূজা দেখতে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে দর্শনার্থীরা আসবে। সব কিছু মিলিয়ে এবার আমাদের এই পূজার আয়োজনে কোনো কিছুই অপূর্ণ রাখা হবে না মহাভারত ও রামায়ণের গল্প কথায়। 

এছাড়াও ফরিদপুর শহরের টেপাখোলা শরৎ সাহার বাড়ী, পুরাতন বাসষ্টান্ডের দুটি পূজা, কাসার পট্টি, সোনার পট্ট, শিবরামপুরের তপন ডাক্তারের বাড়ীর পূজা সাজছে নানা আয়োজন নিয়ে। 

জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সদস্য সচিব সুকেশ চন্দ্র সাহা বলেন, এবার জেলার নয়টি উপজেলায় সাড়ে ৭৫০টি মন্দিরে দূর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হবে। তিনি বলেন, ফরিদপুর দূর্গা পূজার জন্য সারাদেশে মধ্যে অন্যতম। 

ফরিদপুরের পুলিশ সুপার মোঃ আলীমুজ্জামান বলেন, শান্তিপূর্নভাবে দূর্গা পূজা শেষ করতে সকল প্রস্ততি সম্পন্ন করা হয়েছে। মন্দির গুলোতে সার্বিক নিরাপত্তার জন্য পুলিশ, আনসারসহ মোবাইল টিম কাজ করবে। নিরাপত্তা দিতে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা হাতে নেয়া হয়েছে পূজা মন্ডপ গুলোতে।