Opu Hasnat

আজ ২২ অক্টোবর মঙ্গলবার ২০১৯,

সৈয়দপুর কলেজ অধ্যক্ষের কক্ষে তালা, শিক্ষার্থীদের ক্লাস বর্জন নীলফামারী

সৈয়দপুর কলেজ অধ্যক্ষের কক্ষে তালা, শিক্ষার্থীদের ক্লাস বর্জন

সৈয়দা রুখসানা জামান শানু, সৈয়দপুর (নীলফামারী) : নীলফামারীর সৈয়দপুর সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ সাখাওয়াত হোসেন খোকনের অনৈতিক কার্যকলাপের ঘটনা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়ায় অধ্যক্ষের অপসারণের দাবিতে সোমবার শিক্ষর্থিরা পরীক্ষা ও ক্লাস বর্জন করে অধ্যক্ষের কক্ষে তালা ঝুলিয়ে দেয়। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মধ্যস্থতায় অচলাবস্থার অবসান হয়।

এ প্রসঙ্গে অধ্যক্ষ সাখাওয়াত হোসেন খোকন সোমবার নিজ বাড়িতে সংবাদ সম্মেলন করেন। এসময় তাঁর স্ত্রী সৈয়দপুর মহিলা ডিগ্রি কলেজের সহকারি অধ্যাপক সাবিহা হোসেন সাথে ছিলেন। তিনি বলেন, বাথরুম থেকে বের হওয়ার সময় অফিসের জানালায় একটি ঢিল পড়ে। তখন আমি কে কে বলে পোষাক পরিধান করছিলাম এবং দরজার দিকে এগিয়ে যাই। তিনি চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে বলেন, আমার সাথে কোন মহিলাই ছিলেন না। কার্যালয়ে ভিতরে এমন কোন অনৈতিক ছবি কিংবা ভিডিও দেখাতে পারবেন?

সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরো বলেন, স্মৃতিম্ভের জমিতে অবৈধ দখলদার উচ্ছেদের জন্য চেষ্টা করছি। সেজন্য ওইসব দখলদার ও বিএনপির একটি কুচক্রী মহল আঁতাত করে এই কাহিনী তৈরি করছে। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সাখাওয়াত হোসেন বলেন, আমি মুক্তিযুদ্ধে শহীদ পরিবারের সন্তান। আগামিতে জাতীয় ও স্থানীয় নির্বাচনে অংশ নিতে ইচ্ছুক। এলাকায় আমার ব্যাপক জনপ্রিয়তা রয়েছে। এতে ঈর্ষান্বিত হয়ে প্রতিপক্ষ জামায়াত-বিএনপি আমার বদনাম রটাতে উঠেপড়ে লেগেছে।

সৈয়দপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহজাহান পাশা বলেন, এ সংক্রান্ত কোন লিখিত অভিযোগ পাইনি। এ নিয়ে কথা হয় সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস. এম. গোলাম কিবরিয়ার সাথে। তিনি জানান, ঘটনার সত্যতা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এজন্য তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামি পাঁচ কার্যদিবসে প্রতিবেদন জমা দেবেন তদন্ত কমিটি। কমিটিতে রয়েছেন উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) পরিমল কুমার সরকার, সৈয়দপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল হাসনাত খান ও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রেহানা ইয়াসমিন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, তদন্ত শেষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।