Opu Hasnat

আজ ১০ ডিসেম্বর মঙ্গলবার ২০১৯,

পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান

বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস নতুন প্রজন্মের কাছে পৌঁছে দিতে হবে চট্টগ্রাম

বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস নতুন প্রজন্মের কাছে পৌঁছে দিতে হবে

চট্টগ্রাম উত্তর জেলা বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর মেলার উদ্যোগে জাতীয় পর্যায়ে সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার বাছাই পর্বের পুরষ্কার বিতরণ ও আলোচনা সভা সংগঠনের সভাপতি জাবেদ জাহাঙ্গীর টুটুলের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক ফারুক হোসেন এর পরিচালনায় চট্টগ্রাম জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। 

এতে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এম.এ সালাম। প্রধান বক্তা ছিলেন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি অধ্যাপক মো: মঈনউদ্দীন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক, চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ সদস্য আলহাজ্ব জাফর আহমদ, হাটহাজারী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও চট্টগ্রাম উত্তর জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব এস.এম. রাশেদুল আলম, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রাজিবুল আহসান সুমন, বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর মেলা চট্টগ্রাম উত্তর জেলার প্রধান পৃষ্ঠপোষক হেলাল মো: নুরী, চরলক্ষ্যা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মো: আলী, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগ নেতা মো: আলমগীর, বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর মেলার কেন্দ্রীয় সদস্য সাবের আহমদ, উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর মেলা উত্তর জেলা সহ সভাপতি জাহেদুল ইসলাম, মাকসুদুর রহমান পারভেজ, এজাহারুল ইসলাম ইমন, বাবর উদ্দীন সাগর, এ.বি.এস মিজান, এস.এম জাহেদ পলাশ, মো: মহিউদ্দীন, নাছির উদ্দীন, মো: ইয়াছিন প্রমুখ। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে আবৃত্তি করেন সৈয়দা ফারিহা নওরোজ।

সভায় প্রধান অতিথি চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এম.এ সালাম বলেন, শিশু-কিশোরদের প্রতিভা বিকাশে এবং শিক্ষাকে প্রাণবন্ত করে তুলতে সাহিত্য সংস্কৃতি প্রতিযোগিতার কোন বিকল্প নেই। এসমস্ত প্রতিযোগিতা তথা সহশিক্ষা কার্যক্রম একজন শিক্ষার্থীকে মননশীল এবং আত্মপ্রত্যয়ী মানুষ গঠনে ভূমিকা রাখে। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কালজয়ী দেশপ্রেমের ইতিহাস, বঙ্গবন্ধুর অসাধারণ নেতৃত্ব এবং মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস প্রজন্মের তরে পৌঁছে দেওয়ার জন্য এধরণের প্রতিযোগিতা অত্যন্ত সময়োপযোগি। দীর্ঘ ২১ বছর এদেশের মুক্তিযুদ্ধের এবং বঙ্গবন্ধুর ইতিহাস স্বাধীনতা বিরোধীরা বিকৃত করে রেখেছিল। বর্তমানে বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ বিশ্ব দরবারে মর্যাদার সাথে এগিয়ে যাচ্ছে। অগ্রগতি এবং সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মানে আগামী প্রজন্মকে সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ বিনির্মানে ভূমিকা রাখতে হবে। 

তিনি শিক্ষার্থীদেরকে বলেন, ভালো শিক্ষার্থী হওয়ার পাশপাশি তোমাদেরকে দেশপ্রেমিক  এবং মানবিক নাগরিক হওয়ার দৃঢ় স্বপ্ন থাকতে হবে। জীবনের সকল বাঁধা বিপত্তি অতিক্রম করে তোমাদেরকে একজন আলোকিত ব্যক্তিত্বে পরিণত হতে হবে।

সভা শেষে বিভিন্ন বিভাগে প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করেন প্রধান অতিথি এম.এ সালাম সহ অতিথিবৃন্দ।