Opu Hasnat

আজ ২২ অক্টোবর মঙ্গলবার ২০১৯,

আ’লীগ নেতা ও তার পরিবারকে প্রাণনাশের হুমকির প্রতিবাদে বিক্ষোভ সুনামগঞ্জ

আ’লীগ নেতা ও তার পরিবারকে প্রাণনাশের হুমকির প্রতিবাদে বিক্ষোভ

সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও চরনারচর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান জগদীশ সামন্ত, তার ছেলে জুয়েল সামন্ত ও ভাতিজা অঞ্জন সামন্তকে এক নারী চঞ্চলা রানী দাস কর্তৃক প্রাণনাশের হুমকির প্রতিবাদে মিছিল ও মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

রোববার বিকেল ৫টায় ১২টি গ্রামবাসীর আয়োজনে মিলন বাজারে  এ মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। মিলনবাজার কমিটির সভাপতি আলিফ মিয়া তালুকদারের সভাপতিত্বে ও ছাত্রলীগ নেতা অসীম তালুকদার ও সজীব ভৌমিকের যৌথ সঞ্চালনায় এ সময় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন চরনারচর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রতন কুমার দাস তালুকদার। মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভায় বিশেস অতিথির বক্তব্য রাখেন, চরনারচর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান জয় কুমার বৈষ্ণব, কমিউনিষ্ট পার্টির নেতা কমরেড অমর চাঁদ দাস, আওয়ামীলীগ  নেতা মোঃ হেকিম মড়ল, রানা চৌধুরী, মিলনবাজার কমিটির সাদারন সম্পাদক মোঃ মুজিবুর রহমান, মোক্তার হোসেন, আব্দুল মতি তালুকদার, শিক্ষক অসিত বরণ চৌধুরী, চরনারচর ইউনিয় আওয়ামীলেিগর সাধারন সম্পাদক মোঃ আব্দুল জলিল মেম্বার, যুবলীগ নেতা চানু চৌধুরী, আবুল হোসেন, নুরুল হক, মুক্তিযোদ্ধা রাধাকান্ত দাস, মলয় বিকাশ দাস, পিন্টু মজুমদার, চরনারচর ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান চন্দন দাস, ইউপি সদস্য প্রদীপ ভৌমিক, সজল দাস, তপন ভৌমিক, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোঃ আজিজুল হক, দিরাই উপজেলা যুবলীগ নেতা অঞ্জন সামন্ত, ছাত্রলীগ নেতা বিজিত সামন্ত, দিপেন ভৌমিক, জয়ন্ত সামন্ত, সুজন হাজড়া ভুট্টো, রুদ্র সামন্ত, যুবলীগ নেতা শিশির অধিকারী, আবুল হোসেন, জ্যোতির্ময় দাস, দুলন ভৌমিক ও কবীর মিয়া প্রমুখ। 

বক্তারা বলেন, লন্ডন প্রবাসী চঞ্চলা রানী দাস চরনারচন ইউনিয়নের লৌলারচর গ্রামে কমিউনিটি সেন্টার, বৃদ্ধাশ্রম ইত্যাদি খোলার নামে এলাকায় মাদক ব্যবসার প্রসার ও চোরা কারবারীদের আশ্রয় দিয়ে নানান অপকর্মের প্রতিবাদ করায় দিরাই উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি জগদীশ সামন্ত তার ছেলে এবং ভাতিজাকে প্রাণ নাশের হুমকি দিয়ে আসছে। গত ১৩ সেপ্টেম্বর চঞ্চলা রানী এলাকার কিছু বখাদের নিয়ে এলাকায় তাদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার করে এবং তাদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে হয়রানি করাসহ চরিত্র হননের চেষ্টা চারিয়ে যাচ্ছেন। তারা বলেন, এই নারীর চরনারচর ইউনিয়নের কোন নাগরিকত্ব নেই, তিনি কমিউনিটি ক্লিনিক করতে সরকার তেকে লাইসেন্স নিতে হয় ও পরিবেশ অধিদপ্তরের চারপত্র ও নেই। উনি কিসের ভিত্তিতে এই কমিউনিটি সেন্টার করতে যাচ্ছেন তা এলাকার রোকজন অবগত ও নন। 

অবিলম্বে এই চঞ্চলা রানী ও তার আস্তনায় থাকা এলাকার কিছু চিহিৃত পেশাদার চোরদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনে সরকার ও প্রশাসনের নিকট জোর দাবী জানান। অন্যতায় এই  নারী কর্তৃক একের পর এক অপকর্মে যেকোন সময় এরাকায় উদ্ভুদ পরিস্থিতি ঘটার শঙ্কা প্রকাশ করেছেন উপস্থিত এলাকার সাধারন জনগন।

এই বিভাগের অন্যান্য খবর