Opu Hasnat

আজ ২৩ সেপ্টেম্বর সোমবার ২০১৯,

পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ তিন ডাকাত নিহত কুমিল্লা

পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ তিন ডাকাত নিহত

কুমিল্লায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ আন্তঃজেলা ডাকাত দলের তিন সদস্য নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন বুড়িচং থানার ওসিসহ পুলিশের পাঁচ সদস্য। ঘটনাস্থল থেকে পিস্তল, গুলি, রামদাসহ ডাকাতির বিভিন্ন সরঞ্জাম জব্দ করেছে পুলিশ।

রোববার গভীর রাতে জেলার বুড়িচং উপজেলার কোমাল্লা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন- জেলার দেবীদ্বার উপজেলার চরবাকর গ্রামের বাবুল ওরফে তরকারি বাবুল (৩৯), ব্রাহ্মনপাড়া উপজেলার গোপালনগর গ্রামের তাজুল ইসলামের ছেলে এরশাদুল ওরফে আছাদুল (২৭) ও বুড়িচং উপজেলার জগতপুর পুর্বপাড়া এলাকার মৃত আবুল হাশেমের ছেলে অলি মিয়া (৪৩)।

নিহত ডাকাতদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে হত্যা, অস্ত্র, ডাকাতি, মাদকসহ বিভিন্ন অভিযোগে পাঁচটিরও অধিক মামলা রয়েছে।

পুলিশ জানায়, জেলার বুড়িচং উপজেলার কোমাল্লা গ্রামে সংঘবদ্ধ ডাকাতদল ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছিল। এমন খবরে ওই এলাকায় অভিযানে যায় জেলা ডিবি ও বুড়িচং থানা পুলিশ। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাতদল পুলিশকে লক্ষ্য করে হামলা চালায় এবং গুলি ছোড়ে। এতে পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছোড়ে। এসময় গুলিবিদ্ধ হয়ে ডাকাতদলের তিন সদস্য ও বুড়িচং থানার ওসি আকুল চন্দ্র বিশ্বাসসহ পুলিশের চার সদস্য এসআই মোয়াজ্জেম, এএসআই গোলাম মহিউদ্দিন ও কনস্টেবল রফিক আহত হন।  ডাকাতদের উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন। আহত পুলিশ সদস্যদের চিকিৎসা দেয়া হয়।

জেলা ডিবি’র ওসি মো. মাঈন উদ্দিন খাঁন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ঘটনাস্থল থেকে একটি পিস্তল, চার রাউন্ড তাজা গুলি, এক রাউন্ড গুলির খোসা, একটি পাইপগান, পাঁচ রাউন্ড বন্দুকের তাজা গুলি, চার রাউন্ড খালি খোসা, ছয়টি কাঠের বাটযুক্ত ছোড়া ও রামদা, তিনটি মোবাইল, দুইটি টর্চলাইটসহ ডাকাতির বিভিন্ন সরঞ্জামাদি উদ্ধার করা হয়েছে। 

নিহতদের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।