Opu Hasnat

আজ ১৬ সেপ্টেম্বর সোমবার ২০১৯,

সৈয়দপুরে ডেঙ্গু ও চিকুনগুণিয়া রোগের কারখানা ১’শ শয্যা হাসপাতাল নীলফামারী

সৈয়দপুরে ডেঙ্গু ও চিকুনগুণিয়া রোগের কারখানা ১’শ শয্যা হাসপাতাল

নীলফামারীর সৈয়দপুর থেকে সৈয়দা রুখসানা জামান শানু : ডেঙ্গু ও চিকনগুণিয়া রোগের কারখানা সৈয়দপুর ১’শ শয্যা হাসপাতাল। এমনটি অভিযোগ করেছেন সংশ্লিষ্টরা। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছেন ৫০ শয্যা হাসপাতালের জনবল দিয়ে চলছে ১’শ শয্যা হাসপাতাল। এ কারণে এ অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। 

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, ১’শ শয্যা হাসপাতালের সীমানা প্রাচীরের মধ্যে রয়েছে ময়লা আবর্জনার বিশাল স্তপ। এ ব্যাপারে আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার (আরএমও) ডা. আরিফুল ইসলাম সোহেল  জানান, জনবল স্বল্পতার জন্য এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। তবে আমরা পৌর কর্তৃপক্ষের প্রতি কৃতজ্ঞ। পৌরসভার আর্বজনাবাহী গাড়ি হাসপাতালের অভ্যন্তরে যথারীতি ময়লা আর্বজনা অপসারণ করে। হাসপাতালের অপর একটি সূত্র জানায়, অবকাঠামো অনুসারে এখানে পরিচ্ছন্নতা কর্মী নেই। মাত্র ২ জন সুইপার দিয়ে চলছে পুরো ১’শ শয্যা হাসপাতালের কাজ। এ হাসপাতালের ধরণ অনুযায়ী ২০ জন পরিচ্ছন্নতা কর্মী দরকার । 

অপরদিকে, সবচেয়ে শূন্য পদ রয়েছে সিনিয়র স্টাফ নার্সের। মোট ৩০টি নার্সের পদ শূন্য রয়েছে এ হাসপাতালে। এ প্রসঙ্গে আরএমও আরও জানান, এখানে বর্তমানে কর্মরত রয়েছে মাত্র ২৪ জন। ঘনবসতিপূর্ণ এ শহরে রোগীর সংখ্যা অত্যাধিক হওয়ায় আমরা হিমশিম খাচ্ছি। তিনি আরো বলেন, এখানে চিকিৎসকের বেশকটি পদও শূন্য রয়েছে। পদগুলো হল সিনিয়র কনসালটেন্ট মেডিসিন ১টি, সিনিয়র কনসালটেন্ট সার্জারি ১টি। এছাড়া এনেসথেসিয়া পদে কেউ নেই । এ কারণে  কোন প্রকার অস্ত্রোপচার করা সম্ভব হচ্ছে না।

তিনি আরও বলেন, এ হাসপাতালের কোথায় কি সমস্যা রয়েছে, তা যথারীতি আমরা আমাদের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে জানিয়েছি। সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতাল ডেঙ্গু ও চিকুনগুণিয়া রোগ প্রতিরোধে সমাজে বিভিন্ন স্বাস্থ্য বার্তা প্রচারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তবে সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতাল স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে হাসপাতালের অভ্যন্তরে বিভিন্ন ঝোঁপজঙ্গল, ময়লা আবর্জনা অপসারণে বিশেষ অভিযান চালালে হাসপাতালটির পুরো অঙ্গণ পরিষ্কার রাখা সম্ভব বলে সুধীজনরা মন্তব্য করেছেন। কিন্ত বাস্তবায়নে কোন উদ্যোগ নেই বলে সংশ্লিষ্টরা আরও জানান।