Opu Hasnat

আজ ১৬ সেপ্টেম্বর সোমবার ২০১৯,

জিয়া ইতিহাস থেকে বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে ফেলতে চেয়েছিল : প্রধানমন্ত্রী জাতীয়

জিয়া ইতিহাস থেকে বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে ফেলতে চেয়েছিল : প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অভিযোগ করে বলেছেন, সাবেক রাষ্ট্রপতি ও বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান ইতিহাসের পাতা থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাম মুছে ফেলার চেষ্টা করেছিলেন। 

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে শুক্রবার (১৬ আগস্ট) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

 প্রধানমন্ত্রী বলেন,  ‘মুক্তিযুুদ্ধের সময় নদীর পানি লাল হয়ে গিয়েছিল মানুষের রক্তে, মুক্তিযুদ্ধের ওই বছরে দেশে এক ফোটা ফসল ফলেনি, এক টাকাও রিজার্ভ ছিলো না, অন্যদিকে লাখ লাখ শহীদ পরিবারের হাহাকার। এই ধ্বংসস্তুপে দাঁড়িয়ে জাতির পিতা মাত্র তিন বছর সাত মাসের মধ্যে দেশকে প্রতিষ্ঠিত করার চেষ্টা করে গেছেন। তবে তখনও নানা রকমের ষড়যন্ত্র থেমে থাকেনি। ওই সময় নানা মানুষ নানা রকমের সমালোচনা করে গেছেন। যারা সমালোচনা করেছেন, তারা আমার মনে হয় এখনো বুঝেও ওঠতে পারে না।’

‘‘যখন বাবাকে প্রথমে হত্যা করে। আমার মা জানতেন ওরা বাবাকে হত্যা করেছে, তবুও আমার মা তাদের কাছে জীবন ভিক্ষা চাননি। আমার মা ওদেরকে বলেছিলো বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছো সুতরাং আমাকেও হত্যা করো। এভাবেই সবাইকে হত্যা করার পর সবশেষে হত্যা করা হয় নিষ্পাপ রাসেলকে।

এই হত্যা প্রথমে সবাই ভেবেছিলেন একটি পরিবারের হত্যা। কিন্তু না, পরে সবাই বুঝতে পেরেছে একটি রাষ্ট্র চেতনাকে হত্যা করা হয়েছে। ১৫ আগস্টের পর তারা এই দেশকে ইসলামিক রিপাবলিক করেছিল। পরে তারা আর রাখতে পারেননি।’’

হত্যাকারীরা তার পরিবারের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ ছিলেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, জিয়াউর রহমান আমাদের পরিবারে ঘনঘন আসতো এবং আসার সময় খালেদা জিয়াকে সাথে নিয়ে আসতেন যাতে উপরে ওঠে মায়ের সাথে গল্প করতে পারেন। মেজর ডালিম, মোস্তাক আহমেদ ওরা সবসময় আমাদের বাসায় আসতো।

‘‘বহু বছর পর হাইকোর্ট রায় দিয়েছে, অবৈধ ক্ষমতা দখল করা জিয়া ও এরশাদের শাসনকালকে অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। ফলে তারা এখন আর রাষ্ট্রপতি নয় বরং তারা অবৈধ ক্ষমতা দখলকারী।

জিয়ার শাসনকালে দেশকে উন্নত না করে বরং দেশকে ব্যর্থ  রাষ্ট্র পরিণত করতে চেয়েছিল যাতে সবার কাছে প্রমাণ করতে পারে পাকিস্তানের কাছ থেকে স্বাধীন হওয়া আমাদের ভুল ছিল। এর পরে আবারও ২০০০ সালে উন্নয়ন থেমে যায়।’’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা ক্ষমতায় আসার পর এই দেশকে উন্নত করতে চেষ্টা করে যাচ্ছি। এখন আমরা সব দিক দিয়ে পাকিস্তানের চেয়ে অনেক ভালো অবস্থান রয়েছি। আমরা প্রমাণ করেছি আমরা স্বাধীন হয়ে আমরা এই উন্নত করতে পেরেছি।’

‘‘বঙ্গবন্ধু যে সোনার বাংলার স্বপ্ন দেখেছিলেন তা বাস্তবায়ন করতে জনগণের জীবন যাত্রার মান উন্নত করতে নিরলসভাবে পরিশ্রম করে যাচ্ছি। আমি সকল কষ্ট ব্যর্থ রেখেও জনগণের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। বঙ্গবন্ধু তার ভাষণে বলেছিলেন রক্ত দিয়ে হলেও এই দেশকে স্বাধীন করবো,  আজকের দিনে পিতা তোমায় কথা দিলাম তোমার রক্তের ঋণ তোমার সোনার বাংলা নির্মাণ করেই আমরা শোধ করবো।’’