Opu Hasnat

আজ ২৩ অক্টোবর বুধবার ২০১৯,

পদ্মায় পানি বৃদ্ধি অব্যহত, রাজবাড়ীতে বাড়ছে পানিবন্দি মানুষের সংখ্যা রাজবাড়ী

পদ্মায় পানি বৃদ্ধি অব্যহত, রাজবাড়ীতে বাড়ছে পানিবন্দি মানুষের সংখ্যা

গত ২৪ ঘন্টায় রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ গেজ পয়েন্টে পদ্মার পানি ২ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপৎসীমার ৬৮ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে বইছে। রবিবার সকাল ৭ টায় পানি উন্নয়ন বোর্ড এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। 

পদ্মায় পানি বৃদ্ধির ফলে প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা। উচু স্থানে ও শহর রক্ষা বাধে আশ্রয় নিচ্ছে মানুষ। মারাত্বক সংকট দেখা দিয়েছে পশু খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির। 

রবিবার সকালে রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ উপজেলার ছোট ভাকলা ইউনিয়নের চর বরাট এলাকায় গিয়ে দেখাযায়, সেখানে নতুন করে পানিবন্দি হয়ে পরেছে অন্তত ২০০ পরিবার। এছারাও পানিবন্দি হয়ে পড়েছে গোয়ালন্দ উপজেলার বেতকা ও রাখালগাছি গ্রামের আরো অন্তত ৩০০ পরিবার।

স্থানীয়রা জানান, পদ্মায় পানি বৃদ্ধির ফলে টাকা এক সপ্তাহ যাবৎ পানিবন্দি হয়ে আছে রাজবাড়ী সদর উপজেলার বরাট, মিজানপুর, পাংশা উপজেলার হাবাসপুর, কালুখালী উপজেলার কালিকাপুর, রতনদিয়া, গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া, দেবোগ্রামও ছোটভাকলা ইউনিয়নসহ মোট ৮ টি ইউনিয়নের বেশির ভাগ মানুষ।

শুধু বসত বাড়ি নয় বিদ্যালয়ে পানি প্রবেশ করায় এরই মধ্যে ক্লাস বন্ধ হয়ে গেছে রাজবাড়ী সদর উপজেলার ফুরসাহাট সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, বরাট সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও গোয়ালন্দ উপজেলার তেনাপচা ও চান খান সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়।

রবিবার সকালে গোয়ালন্দ উপজেলার ছোট ভাকলা ইউনিয়নের চরবরাট এলাকার বাসিন্দা শামিম শেখ বলেন, আমার দুই বছর আগে বাড়ি ছিলো দেবোগ্রাম ইউনিয়নে। পদ্মায় ভাঙ্গার পর আমি এখানে বাড়ি করেছি। গত বছরের বন্যায় টাকা একমাস পানিতে কষ্ট করেছি। কোন সাহায্য সহযোগিতা পাইনি। এ বছরও পাচ দিন যাবৎ আমার বাড়িতে রান্না বন্ধ। পাশেই শহর রক্ষা বাধে উঠেছি। কোন রকমে দিন পার করছি। 

একই এলাকার অপর বাসিন্দা আছিয়া বেগম বলেন, আপনারাই প্রথম আসলেন আমাদের খোঁজ নিতে এছাড়া প্রশাসনের কোন মানুষ আমাদের খোঁজ নেয়নি। আমাদের কোন কিছু দেয়নি। তিনি আরো বলেন, এই এলাকার অন্তত দুই’শ পরিবার পানিতে ডুবে আছে। সবচেয়ে বেশি কষ্ট খাওয়ার পানি ও প্রসাব পায়খানা করার। পশুর খাদ্যের অভাব তো রয়েছেই।

রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক ও চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাসট্রিজের সভাপতি কাজী ইরাদত আলী জানান, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী, মানবতার মা জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাদের নির্দেশ দিয়েছেন বর্নার্তদের পাশে দারানোর। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী পানিবন্দি মানুষের পাশে থাকবে রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগ। 

জেলা ত্রান ও পুর্নবাসন কর্মকর্তার দায়িত্বে থাকা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ হাবিবুল্লাহ জানান, রাজবাড়ীর পাঁচটি উপজেলার নির্বাহী অফিসারদের কাছে পানিবন্দি মানুষের তালিকা চাওয়া হয়েছে। তালিকা পেলেই তালিকা ধরে তাদের জন্য শুকনো খাবারসহ ত্রান বিতরন করা হবে। 

তিনি আরো জানান, এরই মধ্যে শনিবার বিকেলে রাজবাড়ী সদর উপজেলার বরাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কর্তৃক ২০৬ জনের তালিকা পাওয়ার পর রাজবাড়ীর জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম তাদের মাঝে শুকনো খাবার, চাল, ডাল, তেল ও নুডুস বিতরন করেছেন। জেলার আশ্রয়ন সেন্টারগুলোকে প্রস্তুত করা হয়েছে। তৈরি করা হয়েছে ৪৯ টি মেডিকেল টিম।