Opu Hasnat

আজ ২১ অক্টোবর সোমবার ২০১৯,

সাধন দাদা // সনৎ বসু শিল্প ও সাহিত্য

সাধন দাদা // সনৎ বসু

আমার প্রিয় বিকেলগুলো তোমায় দিলাম
তোমায় দিলাম চিলেকোঠার গোপন দুপুর
আজ দুপুরে কোলকাতাতে কালবোশেখি
স্মৃতির পাতায় আমার সে গ্রাম মৃদঙ্গপুর ৷

মৃদঙ্গপুর সবুজ ঘেরা মেঘের ছায়ায়
সাধনদাদা আমি তখন অবুঝ বালক
তুমি ছিলে ক্লাস সেভেনে,  আমার ফাইভ
সারা দুপুর নদীর চরে সাজাই পালক,
সাজাই পালক গাঙশালিখ আর বালিহাঁসের
নদী তখন ফুরফুরে আর কলকলানি
হাওয়ায় ওড়ে হলুদ পাতা, রোদের রুমাল
আমরা দু-জন উজান বেয়ে নৌকা টানি ৷

আজ মনে হয় এইতো সেদিন ছুটির সকাল
বৃষ্টি মাথায় ছুটছি দুজন সাধুর নালায় 
খ্যাপলা জাল আর কোঁচ হাতে মাছ, কাঁকড়া শিকার
শ্রাবণদিনের সে সব স্মৃতি বড়োই জ্বালায়  ৷

সাধন দাদা,  লিকলিকে এক গ্রাম্য কিশোর
বোতাম ছেঁড়া সার্ট, পায়ে হাওয়াই চটি
নিত্যিনতুন আবিষ্কারের নেশায় বিভোর
তোমার টানে বনবাঁদাড়ে আমিও হাঁটি
তুমি ছিলে ডাঙুলিতে সবার সেরা
সবার সেরা কাচ্চিলে আর লাট্টু খেলায়
ডানপিটে আর সৃষ্টিছাড়া বলত লোকে
হাতসাফাইয়ে করতে কামাল রথের মেলায়
আমার যখন বুকের ভেতর ধড়াস্ ধড়াস্
এই বুঝি কেউ চেঁচিয়ে ওেেঠ ধর ব্যাটাকে
তোমার তখন জামার ভাঁজে তিনটে পুতুল
ভিড়ের ভেতর সটকে যেতে কোন সে ফাঁকে ৷

স্মৃতি বড়োই উথাল পাথাল পড়ন্ত দিন
কোকিল ডাকে পাতার ফাঁকে কাছেই কোথাও
তুমি এখন বিদেশ বিভুঁই আমেরিকায়
আমি থাকি ডাফ ষ্ট্রীটে ফ্ল্যাট অনামিকায়
কোথায় গেল মৃদঙ্গপুর গাজনমেলা
কোথায় আমার সোনায় মোড়া
বালকবেলা!
ব্যালকনিতে দাঁড়াই, দেখি গাড়ির মিছিল
চিলতে আকাশ, আর খুঁজি না উড়ন্ত চিল
সাধনদাদা, কেমন আছো 
দূর প্রবাসে
তোমার কথা ভাবলে গাঁয়ের
গন্ধ আসে ৷৷