Opu Hasnat

আজ ১৩ ডিসেম্বর শুক্রবার ২০১৯,

ঢাবি শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে তিলোত্তমার বাঁধা ক্যাম্পাস

ঢাবি শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে তিলোত্তমার বাঁধা

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সরকারি সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের করা অবরোধে বাঁধা দিলেন ডাকসু ও সিনেট সদস্য তিলোত্তমা শিকদার। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রের (টিএসসি) পাশে অবরোধ চলার এক পর্যায়ে এসে শিক্ষার্থীদের অবরোধ তুলে নেয়ার আদেশ দেন তিনি।

সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের দাবিতে বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সকাল সাড়ে ১১ টা থেকে টিএসসির চতুর্দিকের রাস্তাসহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও দোয়েল চত্বর অবরোধ করে রেখেছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। পরে দুপুর একটার দিকে সেখান থেকে সরে গিয়ে রাজধানীর শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নেয় তারা।
 
আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা জানান, টিএসসিতে অবরোধ চলাকালীন দুপুর ১২ টার দিকে সুফিয়া কামাল হল থেকে রিকশা নিয়ে টিএসসিতে আসেন তিলোত্তমা শিকদার। টিএসসিতে এসে তিনি নিজ হাতে ব্যারিকেড সরিয়ে ফেলেন এবং আন্দোলনকারীদের অবরোধ তুলে নেয়ার জন্য শাসিয়ে যান।’

প্রত্যক্ষদর্শী কিছু শিক্ষার্থী জানান, তিলোত্তমা শিকদার ব্যারিকেড সরিয়ে দিলে আন্দোলনকারীদের সাথে তার বাদানুবাদ হয়। তখন তিলোত্তমা বলেন, সুফিয়া কামাল হল থেকে টিএসএসি পর্যন্ত আসতে তার ৪০ মিনিট সময় লেগেছে। এছাড়া, বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচয় পত্র না দেখালে অবরোধকারী শিক্ষার্থীরা কোনো রিকশা ছেড়ে দিচ্ছেন না। তাই তিনি অবরোধ তুলে নিতে বলেন।

উল্লেখ্য, চার দফা-যেকোনো মূল্যে সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিল করা, বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল কার্যক্রম অটোমেশনের আওতায় নিয়ে আসা, দুই মাসের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল পরীক্ষার ফলাফল দেয়া, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে সকল ধরনের বহিরাগত যান চলাচল নিয়ন্ত্রণ ও রিকশা ভাড়া নির্ধারণ- বাস্তবায়নের দাবিতে বুধবার সকাল সাড়ে ১১ টা থেকে দুইটা পর্যন্ত শাহবাগ মোড় অবরোধ করে রেখেছিল আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।

পরে, দুপুর দুইটার দিকে ডাকসু সদস্য তানভির হাসান সৈকত আন্দোলনকারীদের সাথে একাত্মতা পোষণ করেন। শাহবাগে অবরোধ শেষে প্রোগ্রামের সমাপ্তি টানতে অপরাজেয় বাংলার সামনে মিছিল নিয়ে আসে আন্দোলনকারীরা।

এ সময় তাদের সাথে সংহতি প্রকাশ করতে এসে নুরুল হক নুর বলেন, “অতীত বহুবার এ নিয়ে আন্দোলন হয়েছে। কিন্তু প্রশাসন এই দাবির বিষয়ে কান তোলেনি। শিক্ষার্থীদের একটা দাবি, অধিভুক্তি বাতিলের, সেটি প্রশাসনের কানে স্পষ্টভাবে পৌছাচ্ছে না। আমি বলতে চাই, পুরো ডাকসু আপনাদের সাথেই আছে। প্রয়োজনে আমরাও দাবি আদায়ে আন্দোলনে নামবো”।

তিনি উল্লেখ করেন, ডাকসু জিএস গোলাম রাব্বানীও সিনেটে সাত কলেজ অধিভুক্তির সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করার কথা বলেছিলেন।

তখন, বৃহস্পতিবার থেকে দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত ক্লাস-পরীক্ষা বর্জনের ঘোষণা দিয়ে অবরোধ স্থগিত করেছিলেন তারা।