Opu Hasnat

আজ ২১ জুলাই রবিবার ২০১৯,

সভায় পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি গোলাম ফারুক

সকলে মিলে সমন্বিতভাবে কাজ করলে মাদক রোধ করা সম্ভব চট্টগ্রাম

সকলে  মিলে সমন্বিতভাবে কাজ করলে মাদক রোধ করা সম্ভব

বাংলাদেশ পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক বিপিএম, পিপিএম বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষনা করেছেন। সে যুদ্ধে জয়ী হতে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি।  জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রণের চেয়ে মাদক রোধ কঠিন হলেও জনগণের সহযোগিতা  পেলে সফলতা আসবে । মাদক হচ্ছে সব অপরাধের মা। মাদক নিয়ন্ত্রণ করা যাবে, কিন্তু  নির্ম‚ল কঠিন কাজ। কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়া ময়দান ও হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলার পর প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে পুলিশসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী এদেশের জনগণকে সাথে নিয়ে সারাদেশে যেভাবে সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রণে জয়ী হয়েছি, ঠিক সকলে মিলে সমন্বিতভাবে কাজ করলে মাদক রোধ করা সম্ভব হবে। 

বুধবার সকাল ১০টায় নগরীর স্টেশন রোডস্থ পর্যটন মোটেল সৈকতের পার্কি হলে আয়োজিত মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধপাচার বিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস এর আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। জেলা প্রশাসন ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর চট্টগ্রাম মেট্রো.উপঅঞ্চল অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় হচ্ছে “সুস্বাস্থ্যেই সুবিচার, মাদক মুক্তির অঙ্গিকার”।

তিনি বলেন, ঢাকার উচ্চশিক্ষিত, মধ্যবিত্ত পরিবারের ছেলেমেয়েরা ইয়াবায় আসক্ত তিনি বলেন, মিয়ানমারে পাহাড়ি পথ পাড়ি দিতে ঘোড়াকে ইয়াবা খাওয়ানো হয়। এটা সেবন করলে ক্ষুধা লাগে না, ঘুম আসে না। মাদক ব্যবসায়ীরা পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মারা যাচ্ছে। নতুন আইনে ২৫ গ্রাম ইয়াবাসহ ধরা পড়লে শাস্তি মৃত্যুদন্ড। তাই সমাজে সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। 

চট্টগ্রামের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ কামাল হোসেনের সভাপতিত্বে ও এডভোকেট মিলি চৌধুরীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (রাজস্ব) মোঃ হাবিবুর রহমান, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর চট্টগ্রাম অঞ্চলের উপ-পরিচালক (কলেজ) প্রফেসর ড.গাজী গোলাম মাওলা, সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ আজিজুর রহমান সিদ্দিকী ও র‌্যাব-৭ এর উপ অধিনায়ক মেজর মোঃ মেহেদি হাসান। 

স্বাগত বক্তব্য রাখেন মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর চট্টগ্রাম বিভাগীয় কার্যালয়ের অতিরিক্ত পরিচালক মো. মজিবুর রহমান পাটওয়ারী। বক্তব্য রাখেন মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর চট্টগ্রাম মেট্রো.উপঅঞ্চলের উপ-পরিচালক শামীম আহমেদ ও  ইসলামিক ফাউন্ডেশনের প্রতিনিধি মাওলানা কাজী শাকের আহমদ। সভায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর চট্টগ্রাম মেট্রো উপঅঞ্চলের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা, গণমাধ্যম কর্মী, নগরীর বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক- শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান চলাকালে দিবসটি উপলক্ষে চট্টগ্রামের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে ‘ক’ ও ‘খ’ গ্রুপে রচনা এবং ‘ক’, ‘খ’ ও ‘গ’ গ্রুপে চিত্রাংকন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কারস্বরূপ ক্রেস্ট ও সনদপত্র তুলে দেন প্রধান অতিথিসহ অন্যান্য অতিথিবৃন্দ। অনুষ্ঠানের পূর্বে নিউমার্কেট মোড়ে মাদকবিরোধী মানববন্ধন সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। পরে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি প্রধান প্রধান সড়ক ঘুরে পর্যটন মোটেল সৈকতে গিয়ে শেষ হয়। 

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে র‌্যাব-৭ এর উপ অধিনায়ক  মেজর মেহেদী হাসান সন্তানের ওপর অভিভাবকের নজরদারি বাড়ানো, শিক্ষার্থীদের জন্য আউটডোর-ইনডোর খেলাধুলার আয়োজন ও ড্রাগ টেস্টিং কিডের মাধ্যমে পরীক্ষার আহ্বান জানান।

স্বাগত বক্তব্যে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর চট্টগ্রাম বিভাগের অতিরিক্ত পরিচালক মো. মজিবুর রহমান পাটওয়ারী বলেন, মাদকাসক্তির মাধ্যমে এইডস ছড়াচ্ছে। মাদকাসক্তদের চিকিৎসার বিকল্প নেই। চট্টগ্রাম বিভাগে ৩৩টি মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্র রয়েছে। চট্টগ্রাম নগরীর ২৫ শয্যা বিশিষ্ট সরকারি মাদক নিরাময় কেন্দ্রে মাদক সেবীদের বিনামূল্যে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। সরকারীভাবে  আরো সহযোগিতা পেলে  এখানে মাদকাসক্তদের দ্রুত সুচিকিৎসা দেয়া যাবে।