Opu Hasnat

আজ ২১ জুলাই রবিবার ২০১৯,

সিলেটে থেকেও সুনামগঞ্জের হত্যা মামলার আসামি হলেন সাংবাদিক ইয়াকুব! সুনামগঞ্জ

সিলেটে থেকেও সুনামগঞ্জের হত্যা মামলার আসামি হলেন সাংবাদিক ইয়াকুব!

সুনামগঞ্জের দক্ষিণ সুনামগঞ্জের পাগলা বাজারে সংঘর্ষে হত্যাকান্ডের সময় সিলেট অবস্থান করে মাস্টার্স পরীক্ষার প্রস্ততি ও ব্যক্তিগত কাজে ব্যস্ত থাকলেও হত্যা মামলায় আসামি করা হয়েছে সাংবাদিক ইয়াকুব শাহরিয়ারকে। সংঘর্ষে প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত স্কুল ছাত্র শাহীনুর হত্যার ঘটনায় গত সোমবার ৩৪ জনের নাম উল্লেখ করে আদালতে মামলা দায়ের করেন নিহদের দাদা লাল মিয়া। হত্যা মামলার এজহারে ১২ নাম্বার আসামী করা হয়েছে দৈনিক যুগভেরী ও সুনামগঞ্জের দক্ষিণ সুনামগঞ্জের উপজেলা প্রতিনিধি ও পাগলা সরকারি হাইস্কুল এন্ড কলেজের প্রভাষক ইয়াকুব শাহরিয়ারকে । মামলায় সাংকবাদিক ইয়াকুব শাহরিয়ার আসামী হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার এসআই আলাউদ্দিন। 

সাংবাদিক ইয়াকুব শাহরিয়ারের সাথে কথা বলে ও তার ফেইবুক ওয়াল থেকে জানা যায়, ২০ জুন বৃহস্পতিবার হত্যাকান্ডের দিন মাস্টার পরীক্ষার প্রবেশপত্র উত্তোলন করতে তাঁর কর্মস্থল পাগলা সরকারি হাইস্কুল এন্ড কলেজের প্রধানের কাছ থেকে ছুটি নিয়ে সিলেট গমন করনে ইয়াকুব শাহরিয়ার। দুপুর ১ টায় সিলেটের টিলাগড় এলাকার একটি কম্পিউটারে দোকান থেকে মাস্টার্স পরীক্ষার প্রবেশপত্র উত্তোলন এমজি কলেজের ইসলামের ইতিহাস ও সাংস্কৃতিক বিভাগের দায়িত্বশীলের কাছ থেকে স্বাক্ষর গ্রহণ করে দুপুর ২ টার দিকে আম্বরখানা যান ইয়াকুব। সেখানে জসীম বুক হাউজে বন্ধুদের সাথে আড্ডা দেন তিনি। ২টা ১৪ মিনিটে জসীম হাউসে একটি বিষয় নিয়ে ফেইসবুকে লাইভে কথা বলেন ইয়াকুব শাহরিয়ার। 

এদিকে এই দিন দুপুর ২টার দিকে পাগলা বাস্ট্যান্ড এলাকায় গাড়ি পার্কিং নিয়ে রায়পুর ও কান্দিগাঁও এলাকাবাসীর মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এসময় প্রতিপক্ষের আঘাতে স্কুল ছাত্র শাহীনুর নিহত হয়। একই সময় সাংবাদিক ইয়াকুব শাহরিয়ার সিলেটে অবস্থান করলেও তাকে প্রতিহিংষাবসত মামলায় আসামি করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন পরিবারের। এই মামলার এজহার থেকে সাংবাদিক ইয়াকুব শাহরিয়ারের নাম প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন তারা। হত্যা মামলায় সাংবাদিক ইয়াকুব শাহরিয়ারকে আসামি করায় প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন জেলা ও উপজেলার সাংবাদিকরা।

এ ব্যাপারে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি কাজী জমিরুল ইসলাম মমতাজ ও সাধারণ সম্পাদক মো. নুরুল হক জানিয়েছেন, সংঘর্ষ চলাকালীন সময়ে ইয়াকুব শাহরিয়ার আমাদের ফোনে জানিয়েছেন তিনি সিলেট মাষ্টার্স পরীক্ষার জন্য অবস্থান করছেন। তাঁকে প্রতিহিংষাবসত মামলা আসামি করা হতে পারে। আমরা তাঁর অবস্থানের বিষয়টি দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার সংশ্লিষ্টদের জানিয়েছি। আমরা এই মামলা থেকে ইয়াকুব শাহরিয়ারের নাম প্রত্যাহারের জোর দাবী জানাই। 

এ ব্যাপারে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার ওসি হারুনুর রশীদ চৌধুরী বলেন কয়েকজন সাংবাদিক আমাকে জানিয়েছেন সাংবাদিক ইয়াকুব শাহরিয়ার সংঘর্ষের সময় সিলেটে অবস্থান করছেন। তবে বাদী পক্ষ তাকে আসামী করেছেন। আমরা বিষয়টি তদন্ত করে দেখবো।

এই বিভাগের অন্যান্য খবর