Opu Hasnat

আজ ২৪ মে শুক্রবার ২০১৯,

এক জনকে হাত, পা ও মুখ বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার

কালীগঞ্জে দুই ছাত্রীকে ধর্ষণ, গ্রেফতার ২ নারী ও শিশুঝিনাইদহ

কালীগঞ্জে দুই ছাত্রীকে ধর্ষণ, গ্রেফতার ২

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার কোলা গ্রামে দশম শ্রেনীর এক মাদ্রাসা ছাত্রীকে হাত পা বেঁধে ধর্ষন করা হয়েছে। শনিবার সকালে গ্রামের একটি মাঠ থেকে ওই ছাত্রীকে হাত মুখ বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার করে মাঠে কাজ করতে যাওয়া কৃষকরা। 

অন্যদিকে, কালীগঞ্জ শহরের বলিদাপাড়া গ্রামে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ৭ম শ্রেনীর আরেক ছাত্রীকে গণধর্ষণ করা হয়। এ ঘটনায় মেয়েটির পিতা আব্দুর রহমান শনিবার সকালে থানায় মামলা করলে শনিবার বলিদাপাড়া গ্রামের বদর উদ্দিনের ছেলে খায়রুল (২২) ও রবিউল ইসলাম নবীর ছেলে মোর্তজা বাপ্পী (২৩) কে পুলিশ গ্রেফতার করে। 

পুলিশ ও এলাকাবাসি সুত্রে জানা গেছে, শুক্রবার রাতে পাশের বাড়িতে মোবাইল চার্জ দিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন কোলা গ্রামের ওই মাদ্রাসা ছাত্রী। এ সময় পথে ওত পেতে থাকা একই উপজেলার খালকুলা বিত্তিপাড়া গ্রামের আব্দুর রউফের ছেলে আলামিন ও তার এক বন্ধু মেয়েটিকে তুলে নিয়ে তার হাত ও মুখ বেঁধে ধর্ষন করে। শনিবার ভোরে কৃষকরা পড়ে থাকা ওই কিশোরীকে উদ্ধার করে বাড়ি পৌঁছে দেয়। 

কিশোরীর পিতা অভিযোগ করেন, রাতে তার মেয়েকে বাড়ির পাশ থেকে তুলে নিয়ে যায় আলামিন ও তার এক বন্ধু। পরে মেয়েটি ধর্ষণের শিকার হয়। দুই যুবকের একজনকে চিনতে পেরেছে ধর্ষিতা। তার পিতার ভাষ্যমতে তার মেয়ে মাগুরার শালিখা উপজেলার কোটবাগ দাখিল মাদ্রাসার দশম শ্রেনীর ছাত্রী। শুক্রবার রাত নয়টার দিকে পাশের বাড়িতে মোবাইল ফোনে চার্জ দিতে যায় তাঁর মেয়ে। বাড়ি ফেরার পথে ওত পেতে থাকা দুই যুবক তাকে জোর করে তুলে নিয়ে হাত-পা ও মুখ বেঁধে ধর্ষন করে একটি শ্যালো মেশিনের ড্রেনের মধ্যে ফেলে রেখে যায়। 

এ বিষয়ে কোলা পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক (এসআই) আবুল কাশেম বলেন, মেয়েটিকে ধর্ষন করে ড্রেনের মধ্যে ফেলে রেখে যায় বলে শুনেছেন। কালীগঞ্জ থানার ওসি ইউনুস আলী খবরের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এ ঘটনায় শনিবার বিকালে কালীগঞ্জ থানায় একটি মামলা হয়েছে। ধর্ষক ও তার সহযোগীকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। মেয়েটির ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। 

এদিকে, প্রেমজ সম্পর্কের সুত্র ধরে কালীগঞ্জ শহরের আয়েশা খাতুন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ৭ম শ্রেনীর এক ছাত্রীকে ৩ যুবক কর্তৃক ধর্ষনের অভিযোগ উঠেছে। শনিবার সকালে ধর্ষিতার পিতা কালীগঞ্জ থানায় মামলা করেছেন। এজাহারে বলা হয়েছে বলিদাপাড় গ্রামের যুবক খায়রুল গত ৩ মাস ধরে স্কুলে যাওয়া আসার পথে প্রায়ই তার মেয়েকে কু-প্রস্তাব দিত। এক পর্ষায়ে তার মেয়েকে ফুসলিয়ে খায়রুল প্রেমজ সম্পর্ক গড়ে তুলে। এঘটনা জানাজানি হলে মেয়ের পরিবার খায়রুলকে বিয়ের জন্য চাপ দিতে থাকে। কিন্তু খায়রুল বিয়ে করতে অস্বীকার করে উপরন্ত তার বন্ধুদের সহযোগিতায় গত ২৫ এপ্রিল স্কুলছাত্রীকে জনৈক রাব্বীর ফাঁকা বাড়িতে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করে। মেয়েটির পরিবারের পক্ষ থেকে প্রথমে সামাজিক ভাবে ঘটনাটি নিরসন করতে ব্যার্থ হয়ে অবশেষে ঘটনার ১৫ দিন পর ৩ যুবকের নামে থানায় মামলা দায়ের করে। পুলিশ অভিযুক্ত ৩ জনের মধ্যে দু’জনকে আটক করলেও একজন পলাতক রয়েছে।