Opu Hasnat

আজ ২১ অক্টোবর সোমবার ২০১৯,

দামুড়হুদায় দুই মুক্তিযোদ্ধাকে লাঞ্ছিত করায় অভিয়োগ দায়ের মুক্তিবার্তাচুয়াডাঙ্গা

দামুড়হুদায় দুই মুক্তিযোদ্ধাকে লাঞ্ছিত করায় অভিয়োগ দায়ের

চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার ফুলবাড়ী গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মতিয়ার রহমান ও রুহুল আমিনকে কটুক্তি ও লাঞ্ছিত করায় দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাহি অফিসার বরাবর অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধা মতিয়ার রহমান বৃহস্পিতিবার সকাল ১০টার দিকে একই গ্রামের খলিল গাইনের ছেলে মিলন ও আযহার আলীর ছেলে লিটনের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করে। মুক্তিযোদ্ধা মতিয়ার রহমান ফুলবাড়ী গ্রামের মৃত আব্বাস আলীর ছেলে ও রুহুল আমিন একই গ্রামের মৃত খেপাই মন্ডলের ছেলে।

অভিযোগ সুত্রে জানাগেছে, প্রায়ই লিটন ও মিলন মতিয়ার রহমান ও রুহুল আমিন কে মুরগীযোদ্ধা বলে কুটক্তি করে আসছে। একই গ্রামের ছেলে হওয়ায় বার বার তাদেরকে জনসমুখে এধরনের কুটক্তি করতে নিষেধ করা হয়। এরই মাঝে গত ১৩ এপ্রিল সকাল ৯ টার দিকে গ্রামের শরিফের মুদি দোকানে বসা অবস্থায় মিলন ও লিটন তাদেরকে কুটক্তি করে ও হাসাহাসি করতে থাকে। এসময় আমি তাদের কথার প্রতিবাদ করলে তারা উভয়কে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে ও মতিয়ার কে ধাক্কা দেয়। এর ঘন্টা খানেক পর সে মাঠ থেকে বাইসাইকেল যোগে বাড়ী ফেরার পথে লিটন মটরসাইকেল দিয়ে তাকে ধাক্কা মারে ও বলে তোকে মারলে ঠেকাবে কে। তখন মুক্তিযোদ্ধা বলেন তুমি আমার ছেলের বয়সি আমি কিন্তু উপজেলা নির্বাহি অফিসারের নিকট অভিয়োগ করবো। তখন লিটন বলে সরকারী লোক দুই দিন পরপর বদলি হয়ে যায়। আমি সারাজীবন গ্রামে থাকবো দেখি তুই কি করতে পারিস। 

মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিন অভিযোগ না করলেও তিনি জানান, আমরা দুই জন প্রায় সকল সময় একই সাথে থাকি লিটন ও মিলন আমাদের কে প্রায়ই কটুক্তি ও হাসাহাসি করে থাকে যা অত্যান্ত লজ্জা জনক। আমরা দেশ স্বাধীন করেছি দেশের মানুষ আমাদের কাছে ঋণী। এখন আমরা যদি এর বিচার না পায় তাহলে আমাদের আত্মহত্যা করা ছাড়া উপায় থাকবেনা।

এই বিভাগের অন্যান্য খবর