Opu Hasnat

আজ ১৮ জুন মঙ্গলবার ২০১৯,

কুষ্টিয়ায় নৌকার প্রার্থীর সাংবাদিক সম্মেলন কুষ্টিয়া

কুষ্টিয়ায় নৌকার প্রার্থীর সাংবাদিক সম্মেলন

২৪ মার্চ আসন্ন ৫ম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে কুষ্টিয়ার মিরপুরে নৌকার প্রতিকের নির্বাচনী অফিস, মোটরসাইকেল ভাংচুর, জনমনে আতঙ্ক ও ভোটের সুষ্ঠু পরিবেশ বিঘ্ন ঘটানো এবং নির্বাচন বানচাল করার জন্য নৌকা প্রতিকের পোষ্টার ছেঁড়া, নৌকা প্রতীকের সমর্থকদের উপর হামলা ও তাদের ঘর বাড়ী ভাংচুরের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন করেছে আওয়ামী লীগ মনোনীত (নৌকা) প্রার্থী কামারুল আরেফিন। সংবাদ সম্মেলনে জাসদ সমর্থীত স্বতন্ত্র প্রার্থী ফারুকুজ্জামান জন (আনারস) প্রার্থীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন কামারুল আরেফিন। 

মঙ্গলবার (১৯ মার্চ) দুপুরে উপজেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন ছিলেন মিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাডভোকেট আব্দুল হালিম, সহ-সভাপতি আনোয়ারুজ্জামান মজনু বিশ্বাস, রবিউল হক রবি, মিরপুর পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি এনামূল হক বিশ্বাস, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক আতাহার আলী, আনোয়ারুল ইসলাম মালিথাসহ উপজেলা আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের নেতৃবৃন্দরা। 

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনীত চেয়ারম্যান (নৌকা) প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক কামারুল আরেফিন বলেন, জাসদ সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থী আমার প্রতিদ্বন্দ্বী চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আন্তর্জাতিক সোনা চোরাকারবারী, ভারতের কুখ্যাত সন্ত্রাসী বিজনের সহযোগী ও জসদ গণবাহিনীর সক্রিয় সদস্য, ৭-৮টি অস্ত্র, বিষ্ফোরক ও চোরাকারবারি মামলার কুখ্যাত আসামী ফারুকুজ্জামান জন ২৪ শে মার্চ নির্বাচনে পরাজয় নিশ্চিত জেনে তিনি জনমনে আতঙ্ক ও ভোটের সুষ্ঠু পরিবেশ বিঘ্ন ঘটানো এবং নির্বাচন বানচাল করার জন্য নৌকা প্রতিকের পোষ্টার ছেঁড়া, অফিস ও মটর সাইকেল ভাংচুর, নৌকা প্রতীকের সমর্থকদের উপর হামলা ও তাদের ঘর বাড়ী ভাংচুর, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর শেখ মুজিবুর রহমান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ এমপি মহোদয়ের ছবি ছেঁড়া ও অবমাননা সহ নানাবিধ বিতর্কিত কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছেন। এহেন কর্মকান্ড সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য অন্তরায়। যার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। এছাড়াও তিনি কালো টাকার বিনিময়ে জাসদ গণবাহিনী ও এলাকার চিহ্নিত সস্ত্রাসীদের সুসংগঠিত করে বিভিন্ন অস্ত্র-সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে শতাধিক মটর সাইকেল মহড়া দিয়ে বিভিন্ন স্থানে পোষ্টার ছেঁড়া, নৌকার অফিস ভাংচুর, মটর সাইকেল ভাংচুর, বিভিন্ন ধরনের হুমকি প্রদান, নির্বাচনের আচরণ বিধি ভঙ্গ সহ জনমনের ভীতি সৃষ্টি করছে।

তিনি আরো বলেন, এ উপজেলার শান্তি প্রিয় জনগণ ভোটের দিন ব্যালটের মাধ্যমে জাসদ গণবাহিনীকে প্রত্যাখান করে উন্নয়নের পক্ষে রায় দিবে। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন, জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু ৩ বার মশার প্রতীকে নির্বাচন করে তার জামানত বাজেয়াপ্ত হয়। পরে তিনি নৌকায় উঠে সংসদ সদস্য নির্বানচিত হয়ে নৌকার বিরুদ্ধে তার দলীয় প্রতীক ব্যতিরেকে একজন সন্ত্রাসীকে সমর্থন দিয়ে জাসদের আসল চেহারা জনগণের সামনে উন্মোচন করেছে।

সংবাদ সম্মেলনে জেলায় কর্মরত বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্টনিক মিডিয়ার সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।