Opu Hasnat

আজ ২৫ মে শনিবার ২০১৯,

ভালবাসা দিবসে সৈয়দপুরে অসহায়দের পাশে মমতার ফেরিওয়ালা নীলফামারী

ভালবাসা দিবসে সৈয়দপুরে অসহায়দের পাশে মমতার ফেরিওয়ালা

সংগঠনের একজন নিজেই টানছে ভ্যান। কয়েকজন সদস্য খাবার, কাপড় নিয়ে আছে সেই ভ্যানে আর বাকি সদস্যরা হাটছে ভ্যানের পিছনে পিছনে। এভাবে মমতার ফেরিওয়ালা রাস্তায় অসহায় দুস্থদের দেখামাত্র বাড়িয়ে দিচ্ছে বিরিয়ানির প্যাকেট আর নতুন জামা। আর এভাবেই ১৪ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে ফুল, গিফট দেওয়া নেওয়ার চিরাচরিত ধারণাকে পাল্টে দিয়ে গরিব দুস্থ ও সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের খাবার আর কাপড় দিয়ে নীলফামারীর সৈয়দপুরের স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠন ‘আমাদের প্রিয় সৈয়দপুর’ উদযাপন করেছে এক ব্যতিক্রমধর্মী ভালবাসা দিবস।

বৃহস্পতিবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) ভালবাসা দিবস উপলক্ষে সংগঠনের সদস্যরা এদিন দুটি গোলাপের দাম সর্বনিম্ন ১০০ টাকা করে যোগান দিয়ে সেই টাকায় অসহায়দের মুখে খাবার তুলে দিয়ে ব্যতিক্রম এই আয়োজন করে। মমতার ফেরিওয়ালা নিয়ে এদিন আমাদের প্রিয় সৈয়দপুর’র এসরার আহমেদ, খালিদ আজম, নওশাদ আনসারী, সাজিদ সাজু, জীবন, আলমগীর, সৈয়্যদ মোস্তাকিম, সোহেল, রকি, রাজা, সোহাগ, ইব্রাহিম, আমিরসহ অন্যান্য সদস্যরা সকাল ১০ টা থেকে ২ টা পর্যন্ত সৈয়দপুরের কয়াগোলাহাট, ধলাগাছ, জসিম বাজার ও ধলাগাছ মাদ্রাসায় শতাধিক অসহায় শিশুদের মাঝে গিয়ে প্যাকেটজাত ওই বিরিয়ানির প্যাকেটগুলো বিতরণ করে। সাথে শিশুদের দিয়েছে দেশপ্রেমের দীক্ষা। ধলাগাছ এলাকায় শিশুদের নিয়ে করেছে দেশকে জানো কুইজ প্রতিযোগিতা। পরে বিজয়ীদের মাঝে কাপড় আর পুরস্কারও বিতরণ করে সংগঠনটি।

সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক নওশাদ আনসারী জানান, আমরা ৫০ টাকার গোলাপ খরিদ না করে পকেট খরচের সে টাকায় প্রতি বছর অসহায়দের খাবারের ব্যবস্থা করে থাকি। মূলত ভালোবাসার আসল মর্মটা সকলের কাছে তুলে ধরতেই প্রতি বছর ভালোবাসা দিবসটি আমরা এভাবেই পালন করে আসছি। সংগঠনের অন্যান্য সদস্যরা জানান, ‘সংগঠনের স্বপ্ন ছিল অসহায়দের পাশে দাঁড়িয়ে প্রকৃত ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ সবার মাঝে তুলে ধরার। কিছুটা হলেও সমাজকে আমরা এই বার্তা দিতে পেরেছি। এভাবে প্রতি বছর তাঁরা ভালোবাসা দিবসটি অসহায়দের জন্য উৎসর্গ করে আসছে মমতার ফেরিওয়ালা।