Opu Hasnat

আজ ১৯ ফেব্রুয়ারী মঙ্গলবার ২০১৯,

সাধারণ যাত্রীদের ঘন্টার পর ঘন্টা যানজটে চরম দুর্ভোগ-

ক্রাউন ও শাহ সিমেন্ট ফ্যক্টরিসহ শিল্পকারখানার ট্রাকে মুন্সীগঞ্জ-ঢাকা-মুন্সীগঞ্জের মুল সরকারি রাস্তা দখল মুন্সিগঞ্জ

ক্রাউন ও শাহ সিমেন্ট ফ্যক্টরিসহ শিল্পকারখানার ট্রাকে মুন্সীগঞ্জ-ঢাকা-মুন্সীগঞ্জের মুল সরকারি রাস্তা দখল

মুন্সীগঞ্জের চর-মুক্তারপুর এলাকায় ক্রাউন সিমেন্ট ফ্যাক্টরি, শাহ সিমেন্ট ফ্যাক্টরিসহ শিল্পকারখানার মাল বোঝাই বড়-বড় ট্রাক দিয়ে পশ্চিম মুক্তারপুর এলাকায় মুন্সীগঞ্জ-ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ রুটে যাতায়াতের মুল সরকারি রাস্তা দখল করে রেখেছে। এ দৃশ্য এখন প্রতিদিনের। এতে সাধারণ যাত্রীদের ঘন্টার পর ঘন্টা যানজটে চরম দুর্ভোগে থাকতে হচ্ছে। এতে জরুরী রোগী নিয়ে এ্যাম্বুলেন্সও রেহায় পায় না। 

মুন্সীগঞ্জ জেলা ট্রাফিক পুলিশও এসব নিয়ন্ত্রনে হিমসিম খাচ্ছে বলে জানান জেলা সদর ট্রাফিক ফাড়ি পুলিশের ইনচার্জ ট্রাফিক ইন্সপেক্টর (টিআই) কাউসার আলম ও কারুল ইসলাম বেগ। 

তারা জানান, মুন্সীগঞ্জ থেকে ঢাকা ও ঢাকা থেকে মুন্সীগঞ্জে আসার পথিমধ্যে ষষ্ট বাংলাদেশ চিন মৈত্রি সেতুর-(মুক্তারপুর সেতুর) ঢালের পাশেই সিমেন্ট ফ্যক্টরিগুলো সরকারি প্রধান রাস্তা তাদের ট্রাক দিয়ে দখল করে রাখে। একদিকে মুন্সীগঞ্জের পশ্চিম মুক্তারপুরে ধলেশ্বরী নদীআর সেই সিমেন্ট বোঝাই ট্রাক মুল রাস্তাসম্পুর্ন বন্ধ করে রাখার কারণে যাত্রীবাহী বাস, সিএনজিসহ হাজারো যানবাহনে থাকা সাধারণ যাত্রীদের ঘন্টার পর ঘন্টা বসে থেকে দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এসব সমস্যার সঠিক সমাধান না হলে বৃহত্তম আন্দোলনে নামবেন বলে প্রশাসনকে হুশিয়ারী দিয়েছেন ভুক্তভুগি এলাকাবাসী।

অন্যদিকে গড়ে উঠা সিমেন্ট ফ্যক্টরিসহ বিভিন্ন শিল্প কারখানার বিষাক্ত গ্যাসের মাধ্যমে পরিবেশ ও মানুষের জীবন হুমকির মুখে পরে গেছে ধলেশ্বরী-শীতলক্ষ্যা-মেঘনা নদী ও নদীর তীরবর্তী অসহায় মানুষের জীবন। এতে মুন্সীগঞ্জবাসীসহ স্থানীয় এলাকাবাসী প্রশাসন ও সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। 

এ ব্যপারে মুন্সীগঞ্জ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম (পিপিএম) জানান, সিমেন্ট ফ্যাক্টরিসহ গড়ে উঠা অন্যান্য শিল্প-কারখানাগুলোর বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ রয়েছে সাধারন মানুষ ও যাত্রীদের। ইতিমধ্যে জেলা সদর ট্রাফিক পুলিশ ও থানা পুলিশকে সরকারি রাস্তা মুক্ত রাখতে সিমেন্ট ফ্যক্টরিগুলো ও মালিকদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেবার নির্দেশ দিয়েছি।