Opu Hasnat

আজ ২৩ জুলাই মঙ্গলবার ২০১৯,

চট্টগ্রামে একুশে বইমেলা শুরু চট্টগ্রাম

চট্টগ্রামে একুশে বইমেলা শুরু

নগরীর এমএ আজিজ স্টেডিয়ামের জিমনেসিয়াম মাঠে শুরু হয়েছে অমর একুশে বইমেলা। রোববার বিকেল পাঁচটায় তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ ফেস্টুন উড়িয়ে মেলার উদ্বোধন করেন। তথ্যমন্ত্রী জাতীয় পতাকা, মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন চসিকের পতাকা উত্তোলন করেন। এ সময় জাতীয় সংগীত পরিবেশন করে কাপাসগোলা সিটি করপোরেশন কলেজের ছাত্রীরা। প্রতিদিন বিকেল ৩টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত মেলা সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে। ছুটির দিন সকাল ১০টা থেকে মেলা শুরু হবে।

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) চট্টগ্রাম সৃজনশীল প্রকাশক পরিষদের সহায়তায় ১৯ দিনব্যাপী এ বইমেলার আয়োজন করেছে। এতে ঢাকা ও চট্টগ্রামের ১১০টি প্রকাশকের স্টল রয়েছে। উদ্বোধন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করছেন চসিক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। স্বাগত বক্তব্য দেন চসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামশুদ্দোহা।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে অভিভাবকদের উদ্দেশ্যে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, নতুন প্রজন্মের হাতে মোবাইল ফোন নয়, বই তুলে দিন। তাদের স্মার্টফোনের আসক্তি থেকে ফেরাতে হবে। বই নতুন প্রজন্মকে জীবন-জগৎ সম্পর্কে জ্ঞান আহরণে, দেশ গড়তে সহায়তা করবে।

তিনি জানান, এরশাদবিরোধী আন্দোলনের সময় কোতোয়ালী থানায় আটক করে তাকে কারাগারে রাখা হয়। কারাগারে তাঁকে মলমূত্রের মাঝে রাখা হয়। তিনি বাসায় খবর পাঠান একটি বই পাঠানোর জন্য। এ সময় তাঁর বাবা ভারতের বিখ্যাত রাজবন্দিদের জীবনী বিষয়ক একটি বই পাঠান। তিনি সারারাত সেই বইটি পড়েছিলেন। বইটি পড়তে গিয়ে তিনি এতটাই আপ্লুত হন, তিনি যে মলমূত্রের ভেতেরে আছেন, তা বেমালুম ভুলে গিয়েছিলেন।

মেলার আয়োজকরা জানান, এবার ৮০ হাজার ৩০০ বর্গফুটজুড়ে একুশে বইমেলায় ঢাকা ও চট্টগ্রামের প্রকাশকদের ১১০টি স্টল থাকবে। ২৮ ফেব্রæয়ারি পর্যন্ত চলবে এ মেলা। প্রতিদিন বিকাল ৩টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত মেলা সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

তারা আরো জানান, মেলার সার্বিক নিরাপত্তায় চসিকের নিরাপত্তা কর্মীরা সার্বক্ষণিক নিয়োজিত থাকবে। পুরো মেলা সিসিটিভির আওতায় এবং মেলায় সার্বক্ষণিক পুলিশ থাকবে। থাকছে ফ্রি ওয়াইফাই, ই-বুক ও সেলফি কর্নারের ব্যবস্থা। এছাড়াও ভাষা আন্দোলন ও স্বাধীনতা আন্দোলন নিয়ে চিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন রয়েছে।

বক্তব্য দেন বইমেলার আহ্বায়ক কাউন্সিলর নাজমুল হক ডিউক, বইমেলার যুগ্ম আহ্বায়ক মহিউদ্দিন শাহ আলম নিপু, জামাল উদ্দিন, সচিব সুমন বড়ুয়া, সমন্বয়কারী আশেক রসুল টিপু প্রমুখ। উপস্থিত ছিলেন শিক্ষাবিদ ড. মোহীত উল আলম, প্রকৌশলী আলী আশরাফ, কবি সাথী দাশ, আশীষ সেন, আনন্দ মোহন রক্ষিত, লেখক সাখাওয়াত হোসেন মজনু, মর্জিনা আকতার, সংস্কৃতি সংগঠক দেওয়ান মাকসুদ, শেখ শওকত ইকবাল, কাউন্সিলর সাইয়্যেদ গোলাম হায়দার মিন্টু, সলিমুল হক চৌধুরী বাচ্চু, মো. জোবায়ের, হাসান মুরাদ বিপ্লব, আবিদা আজাদ প্রমুখ।