Opu Hasnat

আজ ২০ সেপ্টেম্বর শুক্রবার ২০১৯,

যৌথ বাজার মনিটরিং এ প্রাণিসম্পদ সংশ্লিষ্টদের সাথে ক্যাবের বিশেষ অভিযান রাজশাহী

যৌথ বাজার মনিটরিং এ প্রাণিসম্পদ সংশ্লিষ্টদের সাথে ক্যাবের বিশেষ অভিযান

রাজশাহীর পবা উপজেলায় শতভাগ পোল্ট্রি খামারী ও খাদ্য বিক্রেতাদের রেজিস্ট্রেশনের আওতায় আনতে উদ্যোগ গ্রহণ করেছে প্রাণিসম্পদ বিভাগ ও সংশ্লিষ্ট অন্যান্য প্রতিষ্ঠান। বৃহস্পতিবার সকালে পবা উপজেলা প্রাণিসম্পদ কার্যালয় সভাকক্ষে স্থানীয় প্রাণিসম্পদ সংশ্লিষ্টদের এক পরামর্শ সভায় এ সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়। দাতা সংস্থা ইউকেএইড এর অর্থায়নে ও আন্তর্জাতিক সংস্থা ব্রিটিশ কাউন্সিলের কারিগরি সহায়তায় ভোক্তা অধিকার বিষয়ক জাতীয় প্রতিষ্ঠান কনজুমারস্ এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-ক্যাব কর্তৃক বাস্তবায়িত ইস্যু বেইজড্ প্রজেক্ট অন ফুড সেফটি গভার্নেন্স ইন পোল্ট্রি সেক্টর প্রকল্পের উদ্যোগে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।  

জেলা  প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা  ড. জুলফিকার মো. আখতার হোসেনের সভাপতিত্বে এই পরামর্শ সভায় আলোচনায় অংশ নেন উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) ভ্যাটেরিনারী সার্জন ডা. খন্দকার সাগর আহমেদ, ক্যাব-জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো. গোলাম মোস্তফা মামুন, পবা উপজেলা কনজুমারস কমিটির সভাপতি কাজী নাজমুল ইসলাম,  মাঠ সমম্বয়কারী কৃষিবিদ মিজানুর রহমান, মাঠ কর্মকর্তা কৃষিাবদ মো. মহিদুল হাসান প্রমূখ।  

পরামর্শ সভায় প্রকল্পের কার্যক্রম সমূহ, খামার ও খাদ্য প্রতিষ্ঠান রেজিস্ট্রেশন করণে সহযোগিতার ক্ষেত্র, পোল্ট্রি খামারীদের এন্টিবায়োটিকের ব্যবহার কমিয়ে বায়োসিকুরিটি বা জৈব নিরাপত্তা নিশ্চিত, পোল্ট্রি খাদ্য বিক্রেতা ও জীবন্ত মুরগী বিক্রেতাদের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধিসহ বাজার কমিটি ও স্থানীয় সরকারকে সম্পৃক্তকরণের মধ্য দিয়ে পোল্ট্রির নিরাপদ খাদ্য ও নিরাপদ পোল্ট্রি মুরগী ভোক্তাদের মধ্যে পৌঁছে দেয়ার জন্য প্রয়োজনীয় করণীয় সমূহ নিয়ে বিশদ আলোচনা ও পরামর্শ গৃহিত হয়। সভা শেষে জেলা  প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ড. জুলফিকার মো. আখতার হোসেনের সভাপতিত্বে আট সদস্য বিশিষ্ট একটি দল পবা উপজেলার পার্শ্ববর্তী নওহাটা বাজারে বিভিন্ন ফিড, পোল্ট্রি ঔষধ ও জীবন্ত মুরগী বিক্রেতাদের দোকান পরিদর্শন করেন এবং সেই  সাথে প্রয়োজনীয় পরামর্শ প্রদান করেন। বর্তমান সরকার নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করনে দৃঢ় প্রতিশ্রুতি বদ্ধ বিধায় নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করতে সরকারকে সহযোগীতা করতে হবে।