Opu Hasnat

আজ ২৬ জুন বুধবার ২০১৯,

গত এক বছরে ভৈরব-টঙ্গী রেলপথে ১২০ জনের মৃত্যু কিশোরগঞ্জ

গত এক বছরে ভৈরব-টঙ্গী রেলপথে ১২০ জনের মৃত্যু

 

ঢাকা-চট্রগ্রাম-কিশোরগঞ্জ রেলপথের টঙ্গী-ভৈরব-সরারচর জোনে গত এক বছরে ট্রেনে কাটা পড়ে ১২০ জনের মৃত্যু হয়েছে। নিহতদের মধ্যে ৮৯ জন পুরুষ এবং ৩১ জন মহিলা। ২০১৮ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত এই মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। নিহতদের মধ্যে অধিকাংশকেই অজ্ঞাত লাশ হিসেবে পুলিশ দাফন করেছে। ট্রেনে ভ্রমন করতে গিয়ে অসতর্কতার কারণেই এইসব দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের দাবি।

ভৈরব রেলওয়ে থানা সূত্রে জানা যায়, ভৈরব-টঙ্গী ও ভৈরব- সরারচর রেলওয়ে পথে ট্রেনে ভ্রমণের সময় অনেক যাত্রী অসতর্কতায় দুর্ঘটনার শিকার হয়ে প্রাণ হারান। এর অন্যতম কারগুলির মধ্যে রয়েছে, চলন্ত ট্রেন থেকে উঠা-নামা, অসর্তক রেলপথ পারাপার, ট্রেনের হাতলে ঝুলে ভ্রমনের সময়। এ ছাড়াও অনেক অল্প বয়সী যাত্রী রেললাইনে দাঁড়িয়ে ইয়ারফোন কানে লাগিয়ে মোবাইলে গান শোনা ও কথা বলার সময়ও ট্রেনে কাটা পড়েছে বলেও জানায় রেলওয়ে পুলিশ। এসব ঘটনায় ভৈরব রেলওয়ে থানায় ইউডি (অস্বাভাবিক মৃত্যু) মামলা হয়েছে। নিহতদের লাশ ময়নাতদন্তের পর বেশির ভাগই অজ্ঞাত লাশ হিসেবে ভৈরব পৌর কবরস্থনে  দাফন করেছে পুলিশ। কিছু কিছু লাশ শনাক্তের পর তাদের পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয় বলেও জানায় রেলওয়ে পুলিশ।

ভৈরব রেলওয়ে স্টেশনের ভারপ্রাপ্ত স্টেশন মাস্টার মো. ইছব আলী জানান, ট্রেনযাত্রীদের সর্তক করতে প্রতিদিন স্টেশনের মাইকে ঘোষণা দেয়া হয়। এসব সতর্কতা যাত্রীরা উপেক্ষা করে বলেই এসব দুর্ঘটনা ঘটে।    

এই বিভাগের অন্যান্য খবর