Opu Hasnat

আজ ২৬ জুন বুধবার ২০১৯,

জয় দিয়ে চিটাগং ভাইকিংসের বিপিএল মিশন শুরু খেলাধুলা

জয় দিয়ে চিটাগং ভাইকিংসের বিপিএল মিশন শুরু

বিপিএল উদ্বোধনী ম্যাচে যতটা রোমাঞ্চ ছাড়নোর কথা ততটা পারেনি বর্তমান চ্যাম্পিয়ন রংপুর রাইডার্স। ব্যাটম্যানদের চরম ব্যর্থতায় রংপুরের সংগ্রহ দাঁড়ায় মাত্র ৯৮ রান। তাই কষ্টের জয় দিয়ে বিপিএল মিশন শুরু করলো চিটাগং ভাইকিংস।

শনিবার (৫ জানুয়ারি) মিরপুর শেরে-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শুরু হয় বিপিএল এর উদ্ধোধনী ম্যাচ। প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হয় বর্তমান চ্যাম্পিয়ন রংপুর রাইডার্স বনাম চিটাগাং ভাইকিংস। 
 
টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নামে নব-নির্বাচিত সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মর্তুজার রংপুর রাইডার্স। ব্যাটিংয়ে নেমে চরম ব্যর্থতার পরিচয় দেয় রংপুর, মাত্র ৯৮ রানেই ঘুটিয়ে যায় তারা। 

রংপুরের হয়ে সর্বোচ্চ ৪৪ রান করেন রবি বোপারা। সোহাগ গাজী করেন ২১ রান। চিটাগংয়ের হয়ে ফাইলিঙ্ক ১৪ রানে নেন ৪ উইকেট। মাশরাফি, নাঈম হাসান এবং আবু জায়েদ পান দুটি করে উইকেট। 

এতো অল্প রান দেখে দর্শক তথা ক্রিকেটবোদ্ধারা মনে করতেই পারেন যে পানির মত এ রান তুলে ফেলবে চিটাগাং ভাইকিংস। কিন্তু না, এ অল্প রান তুলতেও ঘাম ঝরে গেলো ভাইকিংসদের। 

চিটাগাং ভাইকিংস জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নামলে দলীয় ১৫ রানের মাথায় দক্ষিণ আফ্রিকার ওপেনার দেলপোর্টকে ফিরিয়ে দেন মাশরাফি। এরপর ব্যাট হাতে নামেন দীর্ঘ ৬ বছরের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে বিপিএল এ ফেরা মোহাম্মদ আশরাফুল। কিন্তু তিনি তার ভক্ত-অনুরাগীদের হতাশ করেন। মাত্র ৩ রানে আউট হন তিনি। আশরাফুল যখন আউট হন তখন ভাইকিংসের সংগ্রহ মাত্র ১৯ রান। 

দলের ৫১ রানের মাথায় ২৭ রান করে ফিরে যান শাহজাদ। এরপর বড় চাপে পড়ে চিটাগং। দলের ৬২ রানে ৫ উইকেট হারায় তারা। তবে দলকে ভরসা দিতে ক্রিজে ছিলেন ভাইকিংস অধিনায়ক ‘মিস্টার ডিপেন্ডেবল’ মুশফিকুর রহীম। তিনি নিজের ২৫ রানে এবং দলের ৮৭ রানে আউট হয়ে ফেরেন। 

মুশফিক যখন ফিরেন তখন তাদের জয়ের জন্য দরকার ১২ রান। কিন্তু এই অল্প রান তুলতেই হিমসিম খায় তারা। শেষ দুই ওভারে চিটাগাংয়ের দরকার ছিল ১০ রান। হাতে ছিল ৩ উইকেট। ক্রিজে ছিলেন রবি ফ্রাইলিঙ্ক এবং সানজামুল ইসলাম। শেষ পাঁচ বল হাতে রেখে কষ্টে শিষ্ঠে ৩ উইকেটের জয় পেয়েছে চিটাগং ভাইকিংস।

দুই দলের সর্বশেষ পাঁচবার দেখায় রংপুর রাইডার্স জয় পেয়েছে ৩ আর আর চিটাগং ভাইকিংস জয় পেয়েছে ২ বার।