Opu Hasnat

আজ ১১ ডিসেম্বর মঙ্গলবার ২০১৮,

শেষ দিনে যতক্ষণ মানুষ থাকবে ততক্ষণ কর নেয়া হবে জাতীয়

শেষ দিনে যতক্ষণ মানুষ থাকবে ততক্ষণ কর নেয়া হবে

  জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) আয়োজিত সপ্তাহব্যাপী আয়কর মেলার শেষ দিন আজ (সোমবার)। আর শেষ দিনে মেলা প্রাঙ্গণে যতক্ষণ করদাতারা থাকবেন ততক্ষণ কর নেয়া হবে বলে জানিয়েছে এনবিআর।

এনবিআর সদস্য ও মেলার সমন্বয়কারী জিয়া উদ্দিন মাহমুদ বলেন, ‘মেলার শেষ দিন সোমবার যতক্ষণ পর্যন্ত করদাতারা লাইনে থাকবেন ততক্ষণ পর্যন্ত রিটার্ন জমা নেয়া হবে। রোবাবারও আমরা নির্ধারিত সময়ের পরে রিটার্ন জমা নিয়েছি। শেষ দিনে সোমবারও একই ব্যবস্থা থাকবে।’


এদিকে গতকাল (রোববার) পর্যন্ত মেলার প্রথম ছয়দিনে সেবা নিয়েছেন ২ লাখ ২৭ হাজার ৩৬৭ জন করদাতা। রিটার্ন জমা দিয়েছেন ৬৯ হাজার ৩৬৩ জন করদাতা।

রাজধানীর অফিসার্স ক্লাবে উৎসাহ আর উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে চলছে এই মেলা। গতকাল রোববার সকাল থেকেই উৎসবের আমেজ ছিল মেলায়। বিকেল ৫টায় মেলা শেষ হওয়ার কথা থাকলেও সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে রিটার্ন জমা দিতে দেখা গেছে। প্রতিদিনের মতোই এদিনও ছিল করদাতাদের উপচে পড়া ভিড়। করদাতা এবং সেবা গ্রহীতাসহ সকল মানুষের উপস্থিতিতে কানায় কানায় পূর্ণ ছিল মেলা প্রাঙ্গণ।

এনবিআরের তথ্যমতে, মেলার ষষ্ঠ দিনে রাজস্ব আদায়ের পরিমাণ ৩৪১ কোটি ২৯ লাখ ৭৩ হাজার ৪৭৬ টাকা। দিনটিতে নতুন করে করের আওতায় এসেছেন ৭ হাজার মানুষ। আর রিটার্ন দিয়েছেন প্রায় ৭০ হাজার করদাতা। সব মিলিয়ে সেবা নিয়েছেন ২ লাখ ২৭ হাজার ব্যক্তি।

এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে সংস্থাটি জানায়, করদাতাদের ব্যাপক উৎসাহ ও আগ্রহের মধ্য দিয়ে দেশের ৮টি বিভাগ, ২১টি জেলা এবং ৩৮টি উপজেলাসহ মোট ৬৭টি স্পটে আয়কর মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। রাজধানী ঢাকার মতোই মেলার ষষ্ঠ দিন সারাদেশে করদাতারা স্বতঃস্ফূর্তভাবে কর প্রদান ও সেবা গ্রহণ করেছেন। বিশেষ করে পেশাজীবী, চকুরিজীবী, তরুণ ও নারী করদাতাদের উপস্থিতি ছিল লক্ষ্যণীয়।

মেলায় আয়কর রিটার্ন দাখিল, ই-টিআইএন গ্রহণ (নতুন ও পুরাতন), ই-পেমেন্ট, ই-ফাইলিং, ই-পেমেন্টের ব্যবস্থা রয়েছে। মেলায় আসা মুক্তিযোদ্ধা, নারী, প্রতিবন্ধী ও প্রবীণ করদাতাদের জন্য রয়েছে আলাদা বুথ। মেলায় করদাতাদের যাতায়াতের সুবিধার জন্য রাজধানীর টিএসসি, রামপুরা, বেইলি রোড, মতিঝিল, মিরপুর ও উত্তরা থেকে ১৫টি শাটল বাস রয়েছে।

২০১০ সাল থেকে শুরু হওয়া আয়কর মেলার পরিধি এবং মেলার মাধ্যমে আয়কর বিভাগের সেবার পরিসর বৃদ্ধি পাচ্ছে।