Opu Hasnat

আজ ১৭ ডিসেম্বর সোমবার ২০১৮,

ঝালকাঠিতে তাবলীগ জামায়াতের দুই গ্রুপে উত্তেজনা ঝালকাঠি

ঝালকাঠিতে তাবলীগ জামায়াতের দুই গ্রুপে উত্তেজনা

ঝালকাঠি জেলা ইজতেমা অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে মাওলানা সা’দ ও ঢাকার কাকরাইল মসজিদ কেন্দ্রিক মাওলানা জোবায়েরের অনুসারিদের প্রকাশ্য দ্ব›দ্ব দেখা দিয়েছে। এনিয়ে উভয় গ্রæপের মধ্যে তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে। মাওলানা সা’দ অনুসারীরা ঝালকাঠিতে জেলা ইজতেমা অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। মাওলানা জোবায়ের অনুসারীরা ইজতেমা বন্ধে করতে জেলা প্রশাসনের নিকট আবেদন করেন। গত বুধবার (৭ নভেম্বর) জেলা ইজতেমা বন্ধে তাবলীগ জামায়াতের ঢাকার কাকরাইল মসজিদ কেন্দ্রিক মাওলানা 

জোবায়েরের শতাধিক অনুসারি ঝালকাঠি জেলা প্রশাসকের কাছে জেলা ইজতেমা বন্ধ করার জন্য স্মারকলিপি প্রদান করে। বুধবার (১৪ নভেম্বর) সকাল ১১ টায় মাওলানা সা’দ অনুসারীরা ইজতেমার অনুমোদন চেয়ে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ সুপারের নিকট আবেদন করেন। জানাগেছে, তাবলীগ জামায়াতের মাওলানা সাদের অনুসারিরা আগামী ২২, ২৩ ও ২৪ নভেম্বর জেলা ইজতেমা করার ঘোষণা দিয়েছেন। দুই পক্ষই অনড় অবস্থানে থাকায় ঝালকাঠিতে তাবলীগ জামায়াতের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। মাওলান সাদ অনুসারি তাবলীগ জামায়াতের ঝালকাঠি শাখার অন্যতম নেতা মো: ইসমাইল হোসেন জানান, আমরা ২০১৬ সালেও ঝালকাঠিতে ইজতেমা করেছি। সংগঠনকে শক্তিশালী করার জন্য জেলা ভিত্তিক ইজতেমা চালু করেছি। জেলা প্রশাসক ইতোমধ্যে আমাদের মৌখিক অনুমতি দিয়েছেন, সেভাবেই আমরা প্রস্তুতি নিচ্ছি। অনুমতি না পেলে কি করবেন? জানতে চাইলে তিনি বলেন, এই ইজতেমাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দিপনার সৃষ্টি হয়েছে। 

অনুমতি না পেলে আমরা বিকল্প চিন্তা করবো। অন্যদিকে মাওলানা জোবায়েরের অনুসারি ঝালকাঠি শাখার নেতা গোলাম মো¯ত্মফা খান জানান, আগামী ১৮, ১৯ ও ২০ জানুয়ারি ঢাকার টঙ্গিতে প্রথম ধাপের ইজতেমা অনুষ্ঠিত হবে। এই ধাপের ইজতেমায় ঝালকাঠি অংশ নেবে। দ্বিতীয় ধাপের ইজতেমা অনুষ্ঠিত হবে ২৫, ২৬ ও ২৭ জানুয়ারি। এই ইজতেমার গুরুত্ব কমাতেই ঝালকাঠি জেলা পর্যায়ের ইজতেমা আয়োজন করা হচ্ছে। তাই এই ইজতেমা যাতে না হয় আমরা সে দাবী জানাচ্ছি। জেলা প্রশাসন থেকে যদি এই ইজতেমার অনুমতি দেয়া হয় তাহলে আমরা বসে পরবর্তী সিদ্ধান্ত জনাবো। এদিকে জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, জেলা প্রশাসন থেকে ঝালকাঠিতে ইজতেমা করার জন্য এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত লিখিত কোন অনুমতি দেয় হয়নি।