Opu Hasnat

আজ ১৭ অক্টোবর বুধবার ২০১৮,

নিশ্চিদ্র নিরাপত্তা ও উৎসব মুখর পরিবেশে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে চট্টগ্রাম

নিশ্চিদ্র নিরাপত্তা ও উৎসব মুখর পরিবেশে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে

বাংলাদেশ পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক বিপিএম, পিপিএম বলেছেন- আসন্ন শারদীয় দুর্গাপূজা, নিশ্চিদ্র নিরাপত্তা, আনন্দঘন ও উৎসব মুখর পরিবেশে সুসম্পন্ন করা হবে। এ লক্ষ্যে রেঞ্জ পুলিশের পক্ষ থেকে যাবতীয় নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। রেঞ্জের অধীন ১১টি জেলার বিভিন্ন উপজেলায় অনুষ্ঠিতব্য মোট ৩৭৬০টি দুর্গাপূজা মন্ডপে পুর্নার্থীও দর্শনার্থীরা যাতে নির্বিঘ্নে-নিঃসংকোচে যাতায়াত করতে পারে সে লক্ষ্যে তিন স্তরের নিরাপত্তা থাকবে। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১২টায় নগরীর হালিশহরস্থ জেলা পুলিশ সুপারের সম্মেলন কক্ষে চট্টগ্রাম রেঞ্জ পুলিশের উদ্যোগে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। 

তিনি আরো বলেন, পূজা মন্ডপগুলোকে অতি গুরুত্বপূর্ণ ও সাধারণ-এ তিনটি শ্রেণিতে বিভক্ত করে প্রয়োজনীয় অফিসার ও ফোর্স নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবে। পোষাকী, সাদা পোশাকী ও ডিবি পুলিশের কর্মকর্তা ও সদ্যদের পাশাপাশি তিনটি পূজা মন্ডপের জন্য ১টি করে মোবাইল টিম নিয়োজিত থাকবে। অন্যদিকে সিনিয়র পুলিশ কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে গঠিত বিশেষ টিম পূজা মন্ডপ পরিদর্শনে নিয়োজিত থাকবে। গুরুত্বপূর্ণ পূজামন্ডপে সিসি টিভি ক্যামেরা স্থাপনেরও উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। পূজার সার্বিক শৃঙ্খলা রক্ষায় মদপান করে পূজা মন্ডপে প্রবেশ, আশতবাজি পোড়ানো, নামাজের সময়ে বাদ্য বাজনা বন্ধ রাখাসহ অপরাধমূলক কর্মকান্ড রোধে পুলিশের পাশাপাশি পূজামন্ডপে দায়িত্বরত কমিটির সদস্যদের সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হবে। 

এছাড়া আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে কোন অপশক্তি যাতে ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের সুযোগ না পায় সেদিকে পূজা কমিটিসহ সংশ্লিষ্টদের সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। যেকোন প্রয়োজনে পুলিশ বাহিনী সনাতন ধর্মাবলম্বীদের পাশে থাকবে। রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি (অপারেশন এন্ড ক্রাইম) মো. আবুল ফয়েজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আইন-শৃঙ্খলা বিষয়ক মতবিনিময় সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত ডিআইজি (প্রশাসন ও ফাইন্যান্স) এস.এম রোকন উদ্দিন, জেলা পুলিশ সুপার নুরে আলম মিনা (চট্টগ্রাম), জিহাদুল কবির (চাঁদপুর), ইলিয়াছ শরীফ (নোয়াখালী), মো. আনোয়ার হোসেন খান (ব্রাহ্মণবাড়িয়া), আলমগীর কবির (রাঙামাটি), মো. জাকির হোসেন মজুমদার (বান্দরবান), আ.স.ম মাহতাব উদ্দিন (লক্ষীপুর), এস.এম জাহাঙ্গীর আলম সরকার  (ফেনী), মো. আহমার উজজামান (খাগড়াছড়ি), সৈয়দ নুরুল ইসলাম (কুমিল্লা), এবিএম মাসুদ হোসেন (কক্সবাজার), আর.আর.এফ কমান্ড্যান্ট (এসপি) এম.এ মাসুদ, চট্টগ্রাম জেলা পূজা কমিটির সভাপতি শ্যামল কুমার পালিত, সাধারণ সম্পাদক অসীম কুমার দেব, কুমিল্লা জেলা পূজা কমিটির সভাপতি তপন বকশী, ফেনী জেলা পূজা কমিটির সভাপতি রাজীব দত্ত, সাধারণ সম্পাদক শুসেন চন্দ্র শীল, কক্সবাজার জেলা পূজা কমিটির সাধারণ সম্পাদক বাবুল শর্মা, লক্ষীপুর জেলা পূজা কমিটির সভাপতি শংকর মজুমদার, সাধারণ সম্পাদক স্বপন চন্দ্র নাগ, খাগড়াছড়ি পার্বত্য পূজা কমিটির সাধারণ সম্পাদক তরুণ কুমার ভট্টাচার্য্য, চাঁন্দপুর জেলা পূজা কমিটির সাধারণ সম্পাদক তমাল কুমার ঘোষ, সাধারণ সম্পাদক গোপাল চন্দ্র সাহা, নোয়াখালী জেলা পূজা কমিটির যুগ্ম সম্পাদক তপন ঘোষ, রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পূজা কমিটির সভাপতি অমর কুমার দে, ব্রাহ্মণবাড়িয়া পূজা কমিটির সাধারণ সম্পাদক পরিতোষ রায়, বান্দরবান পার্বত্য জেলা পূজা কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি শিমুল ভৌমিক, কুমিল্লা মহানগর পূজা কমিটির সম্পাদক অচিন্ত্য দাশ টিটু প্রমুখ। সভায় বিভিন্ন জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, থানার অফিসার ইনচার্জ, আর.আর.এফ, নৌ, টুরিস্ট, শিল্প, পুলিশ, ট্রাফিক পুলিশ, এপিবিএন ও পিবিআইসহ বিভিন্ন ইউনিটের ইনচার্জগণ ও পূজা কমিটির নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন। 

শেষে পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের মাসিক অপরাধ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে ভালো কাজের জন্য কয়েকটি ক্যাটাগরিতে পুলিশ কর্মকর্তা ও সদস্যদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন রেঞ্জ ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক বিপিএম, পিপিএম। ক্যাটাগরিগুলো হচ্ছে-রেঞ্জের শ্রেষ্ঠ জেলা, শ্রেষ্ঠ সার্কেল, শ্রেষ্ঠ থানা, শ্রেষ্ঠ ট্রাফিক ইউনিট, শ্রেষ্ঠ ডিবি অফিসার, শ্রেষ্ঠ এসআই/এএসআই/ কনস্টেবল, শ্রেষ্ঠ ডিএসবি অফিসার ও ওয়াচার কনস্টেবল। সভায় রেঞ্জের শ্রেষ্ঠ কমিউনিটি পুলিশিং ইউনিটকেও পুরস্কৃত করা হয়।