Opu Hasnat

আজ ২০ অক্টোবর শনিবার ২০১৮,

মানুষ উন্নয়নের কারনেই আবার নৌকায় ভোট দিবে: শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাতীয়

মানুষ উন্নয়নের কারনেই আবার নৌকায় ভোট দিবে: শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী

আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে ডিসেম্বর মাসের শেষের দিকে এমনটিই জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে রাজবাড়ী-১ আসনের প্রস্তুুতি ? সাংগঠনিক কার্যক্রম ? রাজবাড়ীর উন্নয়নের ভুমিকা ? জনগনের প্রত্যাশা পুরনে কতটুকু ভুমিকা রাখা গেছে ? কেন মানুষ আবার নৌকায় ভোট দিবে ? এ সব বিষয়ে প্রতিবেদকের মুখোমুখি রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য ও শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী।

রবিবার সকালে রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য ও শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলীর বাস ভবনে তার কাছে আমাদের জানতে চাওয়া ছিলো আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রাজবাড়ী-১ আসনের প্রস্তুুতি কেমন রয়েছে 

জবাবে শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জানান, আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে ডিসেম্বর মাসের শেষের দিকে এমনটিই জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশন। তাই এই নির্বাচনকে সামনে রেখে আমরা উন্নয়নের বার্তা নিয়ে প্রতিটি ইউনিয়নে গিয়ে নেতা কর্মীদের নিয়ে মত বিনিময়, উঠান বৈঠক করেছি। সাধারন মানুষের দ্বারে দ্বারে যাচ্ছি। আমরা এক মিনিটও বসে নেই। মানুষ যাতে একটু সেবা পায় সেজন্য আমরা চেষ্টা করেছি। আওয়ামী লীগ সরকার উন্নয়ন করেছে। আমরা এখন সকলের কাছে উন্নয়নের বার্তা পৌছে দিচ্ছি। নির্বাচনের  জন্য আমাদের সকল প্রস্তুুতি রয়েছে। আমরা চাই সব দল আগামী নির্বাচনে অংশ গ্রহন করুক। নির্বাচন কমিশন অবশ্যই একটি নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ন নির্বাচন উপহার দিবে।

রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলীর কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল সাংগঠনিকভাবে আপনাদের কার্যক্রম কেমন ? 

তিনি জানান, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক ভাবে একটি বড় দল। রাজবাড়ীতে আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক ভাবে খুবই শক্তিশালী। রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও রাজবাড়ী-২ আসনের সংসদ সদস্য জিল্লুল হাকীম নৌকার পক্ষে দিনরাত কাজ করে যাচ্ছে। পাশাপাশি রাজবাড়ী-১ আসনে আমরাও বসে নেই। আপনারা লক্ষ করে দেখবেন বর্তমানে আমাদের প্রতিটি প্রগ্রামে পুরুষের পাশাপাশি পাল্লা দিয়ে নারী নেতা কর্মীরা উপস্থিত থাকে কারন জননেত্রী নারী উন্নয়নে বিশ্বাস করে। আজকে সর্বক্ষেত্রে নারীরা ভুমিকা রাখছে। সবার অংশ গ্রহনে দেশ আজ  এগিয়ে যাচ্ছে।   

প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলীর কাছে জানতে চাওয়া ছিল রাজবাড়ীর উন্নয়নে কতটুকু ভুমিকা রাখা হয়েছে ?
তিনি জানান, রাজবাড়ীর উন্নয়ন বলে শেষ করা যাবে না। বড় ধরনের কিছু কাছের কথা বলি। সেটা হলো রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ মোড় থেকে পাংশা উপজেলার শেষ সিমানা পর্যন্ত  প্রায় চারশত কোটি টাকা খরচে সড়ক উন্নয়নের কাজ চলছে। বাঘ মারা এলাকা থেকে জৌকুরা ঘাট র্পন্ত একটি বড় প্রকল্পের কাজ চলছে। রাজবাড়ীবাসির বিদ্যুতের সমস্যা সমাধানের জন্য পল্লী বিদ্যুতের সামনে  বিদ্যুতের একটি সাব স্টেশনের নির্মান কাজ চলছে। যার কাজ শেষ হলে রাজবাড়ীবাসি নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুত পাবে। রাজবাড়ীতে পিটিআই, টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টার, যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর ছিল না। এই সব করে রাজবাড়ীবাসির জন্য করে দিয়েছেন জননেত্রী শেখ হাসিনা। তাছারা রাজবাড়ীর প্রধান সমস্যা ছিল নদী ভাঙ্গন। নদী ভাঙ্গন রোধে তিনশত বিয়াল্লিশ কোটি টাকার প্রকল্প পাশ হয়েছে। 
শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলীর কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল জনগনের প্রত্যাশা পুরনে কতটুকু ভুমিকা রাখা গেছে ?

উত্তরে তিনি জানান, আমরা নির্বাচনের সময় জনগনকে যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম তার পচা নব্বই ভাগ পুরন করতে পেরেছি। আপনারা দেখেন  রাজবাড়ীতে সব জায়গায় আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়ন রয়েছে। এমন একটি প্রতিষ্ঠান পাবেন না যেখানে এই সরকারের অবদান নেই।

কাজী কেরামত আলীর কাছে জানতে চাওয়া ছিল মানুষ কেন নৌকায় আবার ভোট দিবে ?
এ সময় তিনি জানান, উন্নয়নে কারনেই মানুষ আবার নৌকায় ভোট দিবে। আজকে দেশে আওয়ামী লীগ সরকারে জনপ্রিয়তা ৬৬ পারসেন্ট। আওয়ামী লীগ সরকার যে উন্নয়ন করেছে মানুষ পাগল হয়ে নৌকায় ভোট দিবে। দেশের শতকরা ষাটভাগ মানুষ উন্নয়ন দেখে তাদের ভোটাধীকার প্রয়োগ করে।

শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলীর কাছে সর্বশেষ জানতে চাওয়া হয়েছিলো আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে একাধীক প্রার্থীর কথা শোনা যাচ্ছে এ ব্যপারে আপনার মতামত কি ? তিনি জানান, আওয়ামী লীগ অনেক বড় দল। নির্বাচনে একাধীক প্রার্থী থাকতেই পারে। একজন ভালো মানুষ ও তৃনমূলের নেতা কর্মীরা যাকে চাইবে এবং জননেত্রী যাকে প্রার্থী করবেন আমরা তার জন্য সকলে মিলে কাজ করবো। নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করতে আমাদের কারো কোন কাপুর্ন থাকবে না।