Opu Hasnat

আজ ১১ ডিসেম্বর মঙ্গলবার ২০১৮,

রাজশাহী ও নারায়ণগঞ্জে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২ রাজশাহীনারায়ণগঞ্জ

রাজশাহী ও নারায়ণগঞ্জে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২

রাজশাহী ও নারায়ণগঞ্জে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে দুইজন নিহত হয়েছেন। সোমবার রাতে ও মঙ্গলবার ভোরে এ ঘটনা ঘটে। নিহতদের মধ্যে একজন মাদক ব্যবসায়ী এবং অন্যজন ডাকাত দলের সদস্য বলে দাবি করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

জাগো নিউজের রাজশাহীর নিজস্ব প্রতিবেদক জানান, রাজশাহীর মোহনপুরে র‌্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে দুলাল মিয়া (৪৫) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। সোমবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলার ধুরইল এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত দুলাল উপজেলার হরিহরপুর গ্রামের মৃত ইবরাহিমের ছেলে।

র‌্যাবের ভাষ্য, দুলাল এলাকার শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী। তার নামে বিভিন্ন থানায় মাদক সংক্রান্ত ৪-৫টি মামলা আছে।

মঙ্গলবার সকালে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে র‌্যাব-৫ জানায়, রাতে মোহনপুরে টহল দিচ্ছিল রাজশাহীর মোল্লাপাড়া ক্যাম্পের একটি দল। এ সময় ধুরইল মোড়ে টর্চের আলো ও কয়েকজনের আনাগোনা দেখতে পেয়ে র‌্যাবের ওই দলটি সেদিকে এগিয়ে যায়। এ সময় র‌্যাব সদস্যরা তাদের আত্মসমর্পণের নির্দেশ দিলে তারা র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। আত্মরক্ষায় র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালায়। প্রায় পাঁচ মিনিট উভয়পক্ষের গুলি বিনিময়ের পর অজ্ঞাত ৪-৫ জন ব্যক্তি পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাস্থল থেকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় দুলালকে উদ্ধার করা হয়। দ্রুত তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

র‌্যাবের দাবি, এ ঘটনায় র‌্যাবের দুই সদস্য আহত হয়েছেন। তারা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। এছাড়া ঘটনাস্থল থেকে ম্যাগজিন ও এক রাউন্ড গুলিসহ একটি বিদেশি পিস্তল, একটি গুলির খোসা, ৫০৬ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে। 

র‌্যাব-৫ এর উপ-অধিনায়ক মেজর আশরাফুল আলম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

অপরদিকে নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে ইব্রাহিম (৪০) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার ভোরে উপজেলার সোনাচড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ বলছে, নিহত ইব্রাহিম সংঘবদ্ধ ডাকাত দলের সক্রিয় সদস্য। ঘটনাস্থল থেকে তিনটি ককটেল ও ধারালো ছুরি উদ্ধার করা হয়েছে। ইব্রাহিম রূপগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দা।

পুলিশ জানায়, উপজেলার সোনাচড়া এলাকায় ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছিল একদল ডাকাত। খবর পেয়ে বন্দর থানা পুলিশের একটি টিম অভিযান চালালে ডাকাতরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। এ সময় পুলিশও আত্মরক্ষার্থে গুলি ছোড়ে। উভয়পক্ষের গোলাগুলিতে পড়ে ইব্রাহিম নিহত হন। এ সময় আহত হন থানার বন্দর পুলিশের এসআই সাইয়াদুল ও এএসআই ইলিয়াছ খান।

বন্দর থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক আব্দুল আলীম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।