Opu Hasnat

আজ ১৮ আগস্ট শনিবার ২০১৮,

সৈয়দপুরে রেলের জমিতে বিশাল সুপার মার্কেট গড়ে তুলছেন এক প্রভাবশালী নেতা নীলফামারী

সৈয়দপুরে রেলের জমিতে বিশাল সুপার মার্কেট গড়ে তুলছেন এক প্রভাবশালী নেতা

রেলের জমিতে অবৈধভাবে সুপার মার্কেট গড়ে তুলছেন এক প্রভাবশালী নেতা। নীলফামারী সৈয়দপুর শহরে প্রায় ১০ শতক জমির উপর ওই মার্কেটটি গড়ে ওঠছে। যার বাজার মূল্য প্রায় ৫০ কোটি টাকা। 

সরেজমিনে গেলে দেখা যায়, সৈয়দপুর শহরের শহীদ ডা. জিকরুল হক সড়ক ও শহীদ ডা. শামসুল হক সড়কের মাঝামাঝি এলাকায় একটি বিশাল মার্কেট গড়ে ওঠছে। ইতিমধ্যে ওই মার্কেটের দ্বিতল ভবনের ছাদ ঢালাই সম্পন্ন হয়েছে। রেলের জমিতে কিভাবে স্থাপনা নির্মাণ করছেন জানতে চাইলে সৈয়দপুর পৌর জাতীয় পার্টির আহবায়ক জয়নাল আবেদীন বলেন, ইতিমধ্যে জমিটি আমি ইজারায় গ্রহণ করেছি। আমি জানি এখানে মার্কেট গড়ে তোলা অবৈধ। তবুও সবাই করে, আমিও করছি। অন্যরা যদি অপরাধ করে থাকে, আমিও অন্যায় করছি। এটা কোন ব্যাপার না। এটা লেখালেখি করেও কোন লাভও হবে না।

কথা হয় সৈয়দপুর রেলওয়ের পূর্ত বিভাগের উর্দ্ধতন উপ-সহকারী প্রকৌশলী (আইওডাব্লু) তহিদুল ইসলামের সঙ্গে। তিনি জানান, জয়নাল আবেদীন ইতিমধ্যে ওই জমির উপর রেলওয়ের একটি টিনশেড স্থাপনা ইজারা গ্রহণ করেন। জমিটির বাজার মূল্য বর্তমানে প্রায় ৫০ কোটি টাকা। তবে সরকারি জমিতে বহুতল ভবন গড়ে তোলা অবৈধ। রেলওয়ে বিধিতে যা দন্ডনীয় অপরাধ। এ ঘটনায় গত ১১ জানুয়ারি ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে সৈয়দপুর থানায় একটি মামলা করা হয়। তবে পুলিশ কোন ব্যবস্থা নেয়নি। ফলে এসব তথ্য গত ৩ আগস্ট দুর্নীতি দমন কমিশনকে প্রদান করা হয়েছে।

সৈয়দপুর পৌরসভার মেয়র মো. আমজাদ হোসেন সরকার জানান, বাজারে মার্কেট নির্মাণ করতে হলে অবশ্যই পৌরসভার কাছে তাঁকে নক্সা অনুমোদন করতে হবে। জয়নাল আবেদীনের সুপার মার্কেট নির্মাণের ক্ষেত্রে পৌরসভার কোন নক্সা অনুমোদন করেনি। এ ব্যাপারে আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। রেলের পাকশী ভূ-সম্পত্তি বিভাগের বিভাগীয় এস্টেট অফিসার ইউনুছ আলী জানান, জয়নাল আবেদীন যে স্থাপনা গড়ে তুলছেন তা সম্পূর্ণ অবৈধ। পুলিশও এ ব্যাপারে কোন ভূমিকা নিচ্ছে না, তবে আমরা বসে থাকব না। শিগগিরই ওই স্থাপনা গুড়িয়ে দেওয়া হবে। এ বিষয়ে সৈয়দপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহজাহান পাশার সাথে কথা বললে তিনি জানান, রেলওয়ে উচ্ছেদ অভিযানে নামলে পুলিশ সবধরণের সহযোগিতা করবে। মামলাটি আমরা তদন্ত করছি।