Opu Hasnat

আজ ১৮ আগস্ট শনিবার ২০১৮,

দৌলতদিয়ায় উত্তাল পদ্মায় দিনের বেশির ভাগ সময় বন্ধ থাকছে লঞ্চ রাজবাড়ী

দৌলতদিয়ায় উত্তাল পদ্মায় দিনের বেশির ভাগ সময় বন্ধ থাকছে লঞ্চ

 লঘু চাপের কারনে দেশের চার সুমদ্র বন্দরে তিন নম্বর সর্তকতা মেনে চলার নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। লঘু চাপের প্রভাব পড়েছে দেশের গুরুত্বর্পর্ন নৌরুট রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া পাটুরিয়ায়। এই রুটে চলাচলকারী লঞ্চগুলোকে দিনের বেশির ভাগ সময় বন্ধ রাখা হচ্ছে। পাশাপাশি ব্যাহত হচ্ছে ফেরি পারাপার। ফলে বিপাকে পড়ছে যাত্রী ও যানবাহন চালকেরা।

বিআইডবিøউটিএ দৌলতদিয়া কার্যালয় সুত্রে জানাযায়, রবিবার সকাল থেকে হালকা বৃষ্টি এবং ঝড়ো বাতাস শুরু হয়। এতে করে সকাল থেকেই লঞ্চ পারাপার বন্ধ রাখা হয়েছে। এর আগে গত শনিবার দুপুর ১২ টা থেকে রাত ৭ টা পর্যন্ত লঞ্চ পারাপার বন্ধ রাখা হয়। পদ্মায় প্রবল ¯্রােত ও বাতাসের কারনে জরুরী ভিত্তিতে ফেরিতে যানবাহনের পাশাপাশি যাত্রীদের পারাপারের নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে।
দৌলতদিয়া লঞ্চঘাটের সুপার ভাইজার মোহাম্মদ আলী মোল্লা জানান, রবিবার সকাল ছয়টা থেকে দুর্ঘটনা এড়াতে এখন বাজে বিকেল ৫ টা লঞ্চ পারাপার বন্ধ রয়েছে। নদীতে প্রচন্ড বাতাস এবং ¯্রােত আছে যে কারনে লঞ্চ বন্ধ রয়েছে কখন চালু হবে বলা যাচ্ছে না।
অপর দিকে বৈরি আবহাওয়ার কারনে ফেরিগুলোতে নদী পারাপারে সময় লাগছে প্রায় দ্বিগুন। এসব কারণে উভয় ঘাটে রবিবার বিকেল পর্যন্ত দৌলতদিয়া ঘাটে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে হাজার হাজার মানুষ। 

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন সংস্থা (বিআইডবিøউটিসি) দৌলতদিয়া কার্যালয় সূত্র জানায়, যান্ত্রিক ক্রটির কারনে  রোরো ফেরি ‘ভাষা শহীদ বরকত’ ‘কুসুম কলি’ ‘ঢাকা’ এবং বনলতা ”নামক আরেকটি ফেরিকে পুর্নবাসনের জন্য ডক ইয়ার্ডে পাঠানো হয়েছে। 
এছাড়াও রোরো ফেরি বীরশ্রেষ্ঠ হামীদুর রহমানের একটি ইঞ্জিন দুর্বল থাকায় সাধারণত ঝুকি এড়াতে রাতে চলাচল বন্ধ রাখে। বর্তমানে ছোট-বড় ১৫ টি ফেরি চলাচল করছে।

এদিকে ফেরি সংকটের কারনে রবিবার বিকেল পর্যন্ত দৌলতদিয়া ঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ পর্যন্ত প্রায় তিন কিলোমিটার এলাকা পর্যন্ত যানবাহনের দীর্ঘ্য সাড়ি তৈরি হয়। 

বিআইডবিউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক মোঃ সফিকুল ইসলাম বলেন, প্রাকৃতিক বিপর্যয় চলছে। আবহাওয়ার উপর কারো হাত নেই। পদ্মায় পানি বাড়ার সাথে ¯্রােত বেড়ে যাওয়ায় ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। আগে যেখানে লাগতো ৩০ থেকে ৩৫ মিনিট। বর্তমানে সেখানে লাগছে প্রায় ১ ঘন্টা।  এই রুটে চলাচলকারী ২০ টি ফেরির মধ্যে বর্তমানে ১৫ টি ফেরি সার্বক্ষনিকভাবে চলছে। ঘাটে বাড়তি যানবাহনের চাপ রয়েছে।