Opu Hasnat

আজ ১৮ আগস্ট শনিবার ২০১৮,

কাজলা জাতের পটোল চাষে লাভবান হচ্ছে রাজবাড়ীর কৃষকেরা রাজবাড়ী

কাজলা জাতের পটোল চাষে লাভবান হচ্ছে রাজবাড়ীর কৃষকেরা

 রাজবাড়ী সদর উপজেলার শহীদওহাবপুর ইউনিয়নের রামপুর গ্রামের দরিদ্র কৃষক ছলেমান মোল্লা পটোল চাষ করে স্বাবলম্বী হয়েছেন। তার দেখাদেখি এই সবজি চাষ করে ভাগ্যের চাকা ঘুরেছে এ গ্রামের অনেক কৃষকের। 

বছর জুড়েই চাহিদা থাকায় এবং অন্য ফসলের তুলনায় লাভ বেশি হওয়ায় বেশি বেশি পটোল চাষে ঝুঁকছেন এ গ্রামের ছলেমানসহ অন্যান্য চাষিরা। এই সবজিটির আবাদ বাড়াতে সব ধরণের সহযোগিতা দেওয়ার কথা জানিয়েছে সদর উপজেলা কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তর।
কৃষক ছলেমান মোল্লা জানান, প্রায় ৭-৮ বছর আগে তিনি তার মেহগনি বাগান কেটে সদর উপজেলা কৃষি অফিসের সহযোগিতায় ৫০ শতাংশ জমিতে পরীক্ষামূলকভাবে শুরু করেন পটোলের আবাদ। প্রথম বছরেই তিনি পান ব্যাপক সফলতা। এরপর থেকে তিনি নিয়মিত পটোল চাষ করে আসছেন। চলতি মৌসুমেও তিনি নিজস্ব ৫০ শতাংশ জমির সঙ্গে বর্গা নেওয়া ৩০ শতাংশ জমির সবটুকুতেই করেছেন পটোলের আবাদ।

তিনি জানান, নিজস্ব ৫০ শতাংশ জমিতে তিনি কাজলা জাতের পটোল চাষ করেছেন। কাজলা জাতের পটল ফলন বেশি হওয়ায় লাভও বেশি হয়। জমি তৈরী থেকে শুরু করে, বীজ, সার, মাচা তৈরীসহ সবমিলিয়ে জমিতে পটোলের আবাদে খরচ হয় প্রায় ২০ হাজার টাকা। আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে এখান থেকেই সকল খরচ বাদ দিয়েও বছর শেষে প্রায় ৫০-৬০ হাজার টাকা লাভ হবে বলে আশা করেন তিনি। ৫০ শতাংশ জমি থেকে সপ্তাহে প্রায় আড়াই মণ পটল তুলে বাজারে বিক্রি করছেন তিনি। গত চৈত্র মাস থেকে চলতি আষাঢ় মাস পর্যন্ত কেজি প্রতি তিনি ২০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৪৫ টাকা কেজি দরে পাইকারী দামে পটোল বিক্রি করছেন।
সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, ছলেমান মোল্লার সাফল্য দেখে আগ্রহী হয়ে একই এলাকার কৃষক জিয়াউর রহমান বর্গা নেওয়া ৬০ শতাংশ, এলাকার আমির উদ্দিন ৪০ শতাংশ, সালামত মোল্লা ৬০ শতাংশ ও আলমগীর ৯০ শতাংশ জমিতে পটোল চাষ করেছেন।
স্থানীয় কৃষক ওহেদ সরদার , ইসমাইল মন্ডল ও লোকমান বেপারী বলেন, কৃষক ছলেমান মোল্লা সার্বক্ষণিক তার পটোল ক্ষেতে কাজ করেন। সময় মতো সেচ ও সার প্রয়োগসহ সব ধরণের যতœ করে তিনি এলাকার অন্য পটোল চাষিদের চেয়ে ভালো ফলন পান। বাজারে তার পটোলের কদরও বেশি। আমরা মনে করি ছলেমান একজন স্বাবলম্বী কৃষক। কৃষি বিভাগের সহযোগিতা অব্যাহত থাকলে এবং এ পটোলের ন্যায্য মূল্য পেলে এ অঞ্চলে পটোল চাষের পরিধি আরও বাড়বে বলে মন্তব্য করেছেন কৃষকেরা।
এ ব্যাপারে রাজবাড়ী সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ বাহাউদ্দিন শেখ বণিক বার্তাকে জানান, রাজবাড়ী সদর উপজেলায় এ বছর ২১০ হেক্টর জমিতে পটোল চাষ হয়েছে। সেক্স ফেরোমন ট্র্যাপ (কীটনাশক ফাঁদ) ব্যবহার করে নিরাপদ সবজি উৎপাদন কৃষকদের মাঝে বেশ সাড়া জাগিয়েছে। কারণ এতে কীটনাশকের ব্যবহার প্রায় অর্ধেক হ্রাস পেয়েছে। উপজেলা কৃষি অফিস সর্বদাই আধুনিক পদ্ধতিতে পটোল উৎপাদন এবং পোকা-মাকড় ও রোগ দমনে আইপিএম পদ্ধতিসহ বিভিন্ন কার্যকর পরামর্শ প্রদান করে থাকে।