Opu Hasnat

আজ ২৩ সেপ্টেম্বর রবিবার ২০১৮,

মুন্সীগঞ্জ পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি ২৮টি গ্রাম বিদ্যুতায়িত করতে যাচ্ছে মুন্সিগঞ্জ

মুন্সীগঞ্জ পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি ২৮টি গ্রাম বিদ্যুতায়িত করতে যাচ্ছে

শরীয়তপুরের কাচিকাটা ও নওপাড়া ইউনিয়ন মুন্সীগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির অন্তর্ভুক্তির মধ্য দিয়ে ২৮টি গ্রাম বিদ্যুতায়িত হতে যাচ্ছে। এতে গ্রামের অন্তত ২ হাজার বসতঘড় আলোকিত হবে এবং শিক্ষার্থীদের লেখাপড়াসহ গ্রামের সকল মানুষের জীবনমান উন্নত হবে। এ ব্যাপারে বুধবার বিকেলে শরিয়তপুরের ভেদেরগঞ্জ উপজেলার কাচিকাটা ইউনিয়নের শিবসেন বাজারে মুন্সীগঞ্জ পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি ও শরীয়তপুর পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। ডিসেম্বর মাসের মধ্যে এসব গ্রাম বিদ্যুতায়িত হবে বলে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন।

মুন্সীগঞ্জ পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির সভাপতি জামাল হোসেনের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন মুন্সীগঞ্জ পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার(জিএম) এ.কে.এম. মোবারক উল্লাহ, নির্বাহী প্রকৌশলী মো, জয়নাল আবেদীন, সাবেক সভাপতি আব্দুল কাদের মোল্লা, শরীয়তপুর পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার(জিএম) সোহরাব আলী বিশ্বাস, কাচিকা ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হাসেম মাস্টার, নওপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান রাসেদ আজগর, দিঘিরপাড় ইউপ চেয়ারম্যান আরিফ হাওলাদার, যুবলীগ নেতা রিয়াজ আহমেদ মুন্সী প্রমুখ।

শরীয়তপুরের ভেদেরগঞ্জ উপজেলার কাচিকাটা ও নড়িয়া উপজেলার নওপাড়া ইউনিয়ন দুটির মানুষ মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ি ইউনিয়নের দিঘিরপাড় এলাকায় এসে বাজার হাট করে। মুন্সীগঞ্জের সঙ্গে তাদের যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো ও সহজ। তাছাড় ওসব চরাঞ্চল গ্রামগুলোতে মুন্সীগঞ্জের দিঘিরপাড়, বানিয়াল, বাংলাবাজারের লোকজন বাস করেন।

মুন্সীগঞ্জ পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার (জিএম) এ.কে.এম. মোবারক উল্লাহ জানান, ডিসেম্বর মাসের মধ্যে মুন্সীগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির আওতায় শরীয়তপুরের কাচিকাটা ও নওপাড়া ইউনিয়নের ২৮টি গ্রাম বিদ্যুতায়িত হবে।

মুন্সীগঞ্জ পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির সভাপতি জামাল হোসেন বলেন, তিনি এ অজপাড়া গায়ের দরিদ্র এলাকার সন্তান। কোনদিন এসব গ্রামে বিদ্যুৎ আসবে তা কেউ কল্পনাও করেনি। আমার জীবনে শ্রেষ্ঠ পাওয়া, আমি বিদ্যুৎ আনার ব্যবস্থা করতে পারছি।  গ্রামবাসীও আনন্দিত তাদের জীবন যাপন বিদ্যুতের কারণে স্বাচ্ছন্দ ও উন্নত হবে।

মুন্সীগঞ্জ পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির নির্বাহী প্রকৌশলী মো. জয়নাল আবেদীন জানান, এসব গ্রামগুলোতে বিদ্যুৎ পৌঁচাতে ৩০ কিলো মিটার লাইন টানতে হবে। এরজন্য ডিজাইন করে পরবর্তি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।