Opu Hasnat

আজ ১৭ নভেম্বর শনিবার ২০১৮,

বড়াইগ্রামে কথিত বন্দুক যুদ্ধে মাদক ব্যবসায়ী নিহত নাটোর

বড়াইগ্রামে কথিত বন্দুক যুদ্ধে মাদক ব্যবসায়ী নিহত

নাটোরের বড়াইগ্রামে র‌্যাবের সাথে কথিত বন্দুকযুদ্ধে ওসমান গণি (৩২) নামে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে। এসময় ৪১০গ্রাম হেরোইন, একটি ৭.৬২ বিদেশী পিস্তল, ৪ রাউন্ড গুলি ভর্তি একটি ম্যাগজিন, পিস্তলের গুলির একটি খালি খোসা উদ্ধার করা হয়েছে। মঙ্গলবার দিবাগত রাত পৌনে ১২টার দিকে উপজেলার মাঝগাঁও ইউনিয়নের বাহিমালী বাজার মোড়ে এই ঘটনা ঘটে। নিহত ওসমান গণি উপজেলার বনপাড়া পৌরসভার ১২ নং ওয়ার্ডের গুরুমশাইল এলাকার মৃত মুনসুর আলী মুন্সীর ছেলে। ওসমান গণির বিরুদ্ধে নাটোর জেলার বিভিন্ন থানায় মাদক ও চাঁদাবাজি সহ ৫ টি মামলা রয়েছে এবং সে নাটোর জেলার অন্যতম শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিত বলে দাবী র‌্যাবের। 

র‌্যাব-৫ সিপিসি-২ এর কোম্পানী কমান্ডার মেজর শিবলী মোস্তফা জানান, বাহিমালী বাজার মোড় থেকে ভাটুপাড়া গ্রামে যাওয়ার একশত গজ উত্তরে কাঁচা রাস্তার উপর টর্চের আলো এবং কিছু লোকের আনাগোনা দেখতে পায় র‌্যাব সদস্যরা। এসময় তাদের গতিবিধি সন্দেহজনক মনে হলে র‌্যাবের টহল দল উক্ত স্থানের দিকে অগ্রসর হয়। এসময় র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে কিছু লোক দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করে। তাদেরকে আত্মমর্পনের নির্দেশ দিলে তারা টহল দলকে লক্ষ্য করে অতর্কিত গুলি বর্ষণ শুরু করলে র‌্যাবও পাল্টা গুলি বর্ষণ করে। এসময় মাদক ব্যবসায়ী দলের ৩-৪ জন সদস্য পালিয়ে যায় এবং গুলিবিদ্ধ অবস্থায় অজ্ঞাতনামা একজন পড়ে থাকে। পরে তাকে দ্রুত বড়াইগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন এবং পরবর্তীতে থানা পুলিশের মাধ্যমে নিহতের পরিচয় নিশ্চিত করা হয়। 

এদিকে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ওসমান গণির ভাই শাহিন সেখ ও পরিবারের সদস্যরা জানান, মঙ্গলবার বিকাল ৪টার দিকে বনপাড়া পৌরসভার রশিদ ডিলারের মোড় থেকে র‌্যাব সদস্যরা হেলমেট পড়িয়ে তাকে মোটরসাইকেলযোগে তুলে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে তার খোঁজে র‌্যাব, ডিবি ও থানা অফিসে খোঁজ করা হলে ওসমান গণিকে আটক বা তুলে আনার কথা অস্বীকার করেন। এরপর রাত দুইটার দিকে ফেসবুকে সাংবাদিকদের নিউজ দেখে জানা যায় র‌্যাবের সাথে বন্দুকযুদ্ধে সে নিহত হয়েছে। পরিবারের পক্ষ থেকে দাবী ওসমান গণি গত ৬ মাস যাবত কোন মাদক কেনা-বেচার সাথে জড়িত ছিলো না।