Opu Hasnat

আজ ১৪ ডিসেম্বর শুক্রবার ২০১৮,

পার্বতীপুর ভূমিদস্যু ও চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা মালিকানাধীন সম্পত্তি জবর দখলের অপচেষ্টা দিনাজপুর

পার্বতীপুর ভূমিদস্যু ও চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা মালিকানাধীন সম্পত্তি জবর দখলের অপচেষ্টা

দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলার গোবিন্দপুর মৌজায় ভূমিদস্যু ও চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা মালিকানাধীন ভোগ দখলীয় সম্পত্তি জবর দখলের অপচেষ্টা চালাচ্ছে। ফলে আজিজুল হক সুবিচারের আশায় সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের দ্বারস্থ। জানা গেছে, দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর উপজেলার গোবিন্দপুর ভোবের বাজার এলাকায় বসবাসরত মৃত আলহাজ্ব মোজাহার আলীর পুত্র মোঃ আজিজুল হক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পার্বতীপুর ও ফুলবাড়ী জোন বরাবরে লিখিত অভিযোগে বলেন, দিনাজপুর জেলার বীরগঞ্জ উপজেলায় ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। 

তার পার্বতীপুর উপজেলার গোবিন্দপুর মৌজায় ১৩ শতক জমি দীর্ঘদিন ধরে ভোগ দখল করে আসছেন। উক্ত জমি ৬৬৬৯/১৪ এবং ২৫৭৪ দুইটি দলিল মূলে ক্রয় করে খাজনা খারিজের পর  শান্তিপূর্ণভাবে ভোগ দখল করে আসছেন। গত ৮ জুন’১৮ তারিখ সকালে বুলবুল, শওকত, শামীম আজাদ, শফিকুল  ও রেবেকা খাতুন সহ ৬/৭ জনের একটি চিহ্নিত সন্ত্রাসীর দল ও মাদক সম্রাট, হত্যা মামলার আসামীরা গায়ের জোরে মালিকানাধীন সম্পত্তি জবর দখল করার জন্য ইট, বালু, সিমেন্ট দিয়ে পাকা সীমানা প্রাচীর নির্মাণ করতে থাকে। এতে আমাদের লোকজন তাদেরকে নিষেধ করলে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে গালিগালাজ এক পর্যায়ে প্রহার করতে উদ্যত হয়। 

আমাদের চেচামেচিতে স্থানীয় প্রতিবেশী মাহাতাব, জহুরুল, ইয়াকুব সহ অনেকে ঘটনাস্থলে এগিয়ে আসে। এলাকার লোকজনদের উপস্থিতিতে তারা আমাদেরকে খুন করে লাশ গুম করবে বলে প্রকাশ্যে বিভিন্ন ধরনের ভয়-ভীতি ও হুমকি প্রদর্শন করে। আমাদের কবলাকৃত সম্পত্তি তারা সন্ত্রাসী কায়দায় জবরদখল করার অপচেষ্টা চালানোর কারণে স্থানীয় প্রতিনিধি ও গণ্যমান্য  ব্যক্তিদেরকে বিষয়টি জানিয়ে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে সুবিচারের আশায় অভিযোগ দায়ের করা হয়। এ ঘটনা আমাদের প্রতিনিধি গত ২০ জুন’১৮ সকালের দিকে ঘটনাস্থলে গেলে জানতে পারে, উক্ত বিষয়ে পার্বতীপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

 জমির মালিকপক্ষদের সাথে কথা বলে তারা জানায়, এসব ভূমি দস্যু ও সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে পার্বতীপুর থানায় অবগত করা হয়েছে। ঘটনাস্থলে ইট দিয়ে প্রাচীর নির্মাণ সহ টিন দিয়ে নতুন ঘেরা বেড়া ও ছাপড়া ঘরসহ একটি মুক্তিযোদ্ধার নাম সম্বলিত একটি সাইনবোর্ড লক্ষ করা যায়। মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থা (আসক)-এর পরিচালক এম,এ মজিদ জানান, ঘটনার সত্যতা রয়েছে। উক্ত ঘটনার বিষয়ে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে অবগত করা হয়েছে। এ বিষয়ে তদন্ত সাপেক্ষে উর্ধ্বতন সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের নিকট জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করছেন আজিজুল হক সহ ভুক্তভোগী পরিবার।