Opu Hasnat

আজ ২৪ অক্টোবর বুধবার ২০১৮,

গণমাধ্যমের সাথে নবাগত সিএমপি কমিশনার

কোন পুলিশ কর্মকর্তা বা সদস্য মাদকে সম্পৃক্ত থাকলে ব্যবস্থা চট্টগ্রাম

কোন পুলিশ কর্মকর্তা বা সদস্য মাদকে সম্পৃক্ত থাকলে ব্যবস্থা

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) নবাগত কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান পিপিএম বলেছেন, রাজধানী ঢাকার পরেই চট্টগ্রামের গুরুত্ব। নগরীর সার্বিক আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশকে আন্তরিকভাবে কাজ করতে হবে। পুলিশ কর্তৃক কোন লোক বিনা কারণে হয়রানির শিকার হলে তা মেনে নেয়া হবে না। কোন পুলিশ কর্মকর্তা বা সদস্য মাদক ব্যবসায় জড়িত থাকলে, মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে সম্পৃক্ত কিংবা তাদের প্রতি সহানুভুতিশীল থাকার প্রমাণ পাওয়া গেলে প্রথমে সাময়িক বরখাস্ত ও পরে সর্বোচ্চ আইনে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। মাদক দিয়ে সাধারণ মানুষকে হয়রানি করলে মাফ পাবে না। মাদকের সাথে পুলিশের কোন আপোষ হবে না। এ শহরকে বাসযোগ্য হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। সিএমপিতে মাদকের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কোনো পু্লশি সদস্য আমার দায়িত্বপালনকালে থাকতে পারবে না, আমি তাদের পু্লশি সদস্য বলে গণ্য করবো না। এ মুহূর্তে সরকারের কাজের সঙ্গে আমরাও এক হয়ে মাদক ও জঙ্গি নিয়ন্ত্রণে কাজ করবো। এটি আমার মূল প্রায়োরিটি। 

বুধবার দুপুরে নগরীর দামপাড়া পুলিশ লাইন্সের মাল্টিপারপাস শেডে গণমাধ্যমের সাথে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন। 

তিনি বলেন, আমি স্বীকার করছি-অপরাধ নিয়ন্ত্রণে যারা কাজ করেন তাদের কেউ কেউ অপরাধে জড়িত থাকে। কিন্তু তাদের কোনো ছাড় নেই। পুলিশিংয়ের মাধ্যমে জনগণের মন জয় করতে চাই। চট্টগ্রামকে বাসযোগ্য করতে চাই। এ কাজে আপনাদের সহযোগিতা চাই। 

নবাগত সিএমপি কমিশনার বলেন, আসন্ন পবিত্র ঈদুল ফিতরের সময় নগরবাসীর যাতায়াত ও আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পুলিশ থাকবে কঠোর অবস্থানে। নগরবাসী যাতে নিবিঘ্নে ও আনন্দমুখর পরিবেশে ঈদ উদযাপন করতে পারে সে বিষয়ে মেট্রোপলিটন পুলিশের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। সভায় সিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (প্রশাসন) মাসুদ-উল-হাসান, অতিরিক্ত কমিশনার (অপরাধ ও অভিযান) আমেনা বেগম, অতিরিক্ত কমিশনার (ট্রাফিক) কুসুম দেওয়ানসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকতারা উপস্থিত ছিলেন।