Opu Hasnat

আজ ১৮ ডিসেম্বর মঙ্গলবার ২০১৮,

চিরিরবন্দরে গরীব অসহায়দের জন্য ঈদের কেনাকাটায় ভরসা ফুটপাতের দোকান দিনাজপুর

চিরিরবন্দরে গরীব অসহায়দের জন্য ঈদের কেনাকাটায় ভরসা  ফুটপাতের দোকান

বর্তমান সমাজে বিভিন্ন শ্রেনীর লোকজনের বসবাস কেউ বিত্তবান কেউ গরীব আবার কেও মধ্যবিত্ত। এদের মধ্যে আছে ভেদাভেদ। তারই প্রমাণ মিললো দিনজাপুরের চিরিরবন্দর গ্রামীনশহর ও উপজেলা সদর রোডের রাস্তার ধারে। চিরিরবন্দরের বিত্তবানদের সামর্থ্য হলো বড় বড় গার্মেস শপিং মল ও মার্কেটে কেনাকাটা করা। আর তার বিপরীতে গরীব মধ্যবিত্তদের কেনাকাটা হয় ভ্রাম্যমান ফুটপাতের দোকান গুলোতে। ঈদের আর মাত্র ২ দিন তাই নতুন জামা কাপড় কেনাকাটার ধুম শুরু হয়ে গেছে চিরিরবন্দরের মার্কেট বড় বড় গার্মেস ও ফুটপাতের দোকানে। গরীব অসহায়রা এসব গার্মেসে ও বড় মার্কেটে কেনাকাটা না করতে পারলেও ফুটপাত ও ভ্রাম্যমান মার্কেটে ভিড় জমাচ্ছে। 

রাণীরবন্দর সইয়ারী বাজারের রুপালী ব্যাংকের সামনে বসা ফুটপাতের দোকানে মো: শাহাজাহানের সাথে কথা বলে জানা যায়, ঈদ মানে খুশি ঈদ মানে নতুন জামাকাপড় কেনা। আমরা গরীব মানুষ আমাদের সামর্থ্য নাই দামি জামাকাপড় কেনা।  তাই ফুটপাত ও রাস্তার বসা দোকানে আসছি এখানেই আমাদের সামর্থ্যর মধ্যে কেনাকাটা করা যায়। 
দিনমজুর আইজার রহমান বলেন, আমি ভাই সারাদিন যা আয় হয় তা বাজার করতেই শেষ। ঈদে বাচ্চাদের জামাকাপড় কিনে দিবো না বাজার করে খাবো তাই অল্প আয়ে আমাদের কেনাকাটা এই ফুটপাতে। 
এদিকে উপজেলার প্রান কেন্দ্র রাণীরবন্দরে চলছে ঈদের জমজমাট বাজার। ঈদ ঘনিয়ে আসার সাথে সাথে জমে উঠছে মার্কেট শপিং মল গুলো। তবে ঈদ আসলে জেলার বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন ও সেচ্ছাসেবী সংগঠনের সদস্য,রা গরীব অসহায়দের মাঝে ঈদসামগ্রী ও নতুন জামাকাপড় বিতরণ করতে দেখা যায়।