Opu Hasnat

আজ ১৫ আগস্ট বুধবার ২০১৮,

গভের্র জীবিত সন্তানকে মৃত ঘোষণা করায় চিকিৎসকের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ চুয়াডাঙ্গা

গভের্র জীবিত সন্তানকে মৃত ঘোষণা করায় চিকিৎসকের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ

চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায় আতিক সনো সেন্টারের কর্তব্যরত চিকিৎসক নুরুন নাহার বেগমের বিরুদ্ধে অন্তসত্ত্বার গর্ভের জীবিত সন্তানকে মৃত ঘোষনা করায় চিকিৎসকের বিরুদ্ধে আলমডাঙ্গা থানায় অভিযোগ করা হয়েছে। শুক্রবার বিকালে এই অভিযোগ দায়ের করা হয়। 

জানা গেছে, জেলার আলমডাঙ্গা উপজেলার মুন্সিগঞ্জ বড়পুটিমারী গ্রামের মৃত কাহেন আলীর ছেলে সাফায়েত হোসেনের তার স্ত্রী সামিয়া খাতুন ৩ মাসের অন্তঃসত্ত্বা।                     সাফায়েত হোসেন জানান- স্ত্রী সামিয়া গত ১০ মে অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাকে দ্রুত উপজেলার আতিক সনো সেন্টারে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক আল্ট্রাসনোগ্রাফি করার পরামর্শ দেন। চিকিৎসক নুরুন নাহার বেগম আল্ট্রাসনোগ্রাফি করে বলেন, গর্ভের সন্তান মারা গেছে। একই সাথে গর্ভপাত করার পরামর্শ দেন। এসময় গর্ভপাত কারনোর জন্য চিকিৎসকের সাথে সাড়ে ৪ হাজার টাকায় চুক্তিও হয়। পর দিন গত শুক্রবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে গর্ভপাত করানোর জন্য আতিক সনো সেন্টারে আসেন আন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীসহ তার স্বামী। গর্ভপাত করানোর জন্য প্রস্তুতি নিতে থাকে চিকিৎসক নুরুন নাহার বেগম।

সাফায়েত আরও জানান, মনকে বুঝ দেয়ার জন্য আমার স্ত্রীকে আবারও একই উপজেলার সেফা ক্লিনিক অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নিয়ে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক দিয়ে পুনরায় আল্ট্রাসনোগ্রাফী করাই। সেখানকার চিকিৎসক নাজমুন নাহার সুমা ও তাহমিনা পেটের বাচ্চা জীবিত আছে ও খুব ভালো অবস্থায় আছে বলে জানান। 

এ বিষয়ে আলমডাঙ্গার আতিক সনো সেন্টারের চিকিৎসকের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করেছি।
       
আলমডাঙ্গা থানার ওসি আবু জিহাদ ফকরুল আলম খাঁন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, আতিক সনো সেন্টারের চিকিৎসকের বিরুদ্ধে অভিযোগ হয়েছে। ইতোমধ্যেই দুই ক্লিনিকে গিয়ে তদন্ত করা হয়েছে। এখন অভিযোগটি আরও গভীরভাবে খতিয়ে দেখা হচ্ছে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এই বিভাগের অন্যান্য খবর