Opu Hasnat

আজ ১৯ অক্টোবর শুক্রবার ২০১৮,

ময়মনসিংহে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ২ ময়মনসিংহ

ময়মনসিংহে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ২

ময়মনসিংহ নগরী ও সদর উপজেলার চরাঞ্চল এলাকায় গোয়েন্দা পুলিশ ও থানা পুলিশের সাথে পৃথক বন্দুকযুদ্ধে ছিনতাইকারী এবং হত্যা মামলার আসামিসহ ২ জন নিহত হয়েছেন। 

নিহতরা হলেন- ছিনতাইকারী সিরাজুল ইসলাম (২৫) ও হত্যা মামলার আসামি আলমগীর হোসেন (৪০)। এ ঘটনায় ডিবি পুলিশের এক সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) ও দুই কনেস্টেবল আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। 

আহতরা হলেন- জেলা গোয়েন্দা পুলিশের এএসআই আতিক, কনেস্টেবল রজব ও নাজমুল। তাদরকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ( ডিবি ) ওসি আশিকুর রহমান তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। 

কোতয়ালী মডেল থানা পুলিশের বরাত দিয়ে ওসি আশিকুর রহমান জানান, শনিবার রাত সাড়ে ৩টার দিকে নগরীর সানকিপাড়া এলাকার এস এ সরকার রোডে ছিনতাইকারী সিরাজুল ইসলামকে নিয়ে পুলিশ অভিযানে বের হয়। পরে এসএ সরকার রোডে প্রবেশ করতেই সিরাজের সহকর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। এসময় কৌশলে পালানোর সময় সিরাজ গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যায়। এ ঘটনায় হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

তিনি আরও জানান, সদর উপজেলার চরভবানীপুর এলাকায় চাঞ্চল্যকর কাশেম হত্যা মামলার অন্যতম আসামি আলমগীর হোসেনকে গতকাল (১১মে) দুপুরে গোপালগঞ্জ জেলা থেকে ময়মনসিংহ ‌জেলা গোয়েন্দা পুলিশ গ্রেফতা‌র করে। পরে শনিবার (১২ মে ) মধ্যরাতে তাকে নিয়ে পলাতক আসামিদের ধরতে চরাঞ্চলের জয়বাংলা বাজারের উত্তরে পৌঁছালে পলাতক আসামি সিদ্দিকসহ অজ্ঞাতনামা ৮/১০ জন দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে পুলিশের ওপর হামলা চালায়। এক পর্যায়ে তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। পুলিশও পাল্টা গুলি চালালে গোলাগুলির মাঝখানে পরে আলমগীর গুলিবিদ্ধ হন। এসময় অবস্থা বেগতিক দেখে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়।

এঘটনায় ডিবি পুলিশের এএসআই আতিক, কনেস্টেবল রজব ও নাজমুল আহত হয়েছেন। গুলিবিদ্ধ আলমগীরসহ আহতদের দ্রুত ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ (মমেক) হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক আলমগীরকে মৃত ঘোষণা করেন।