Opu Hasnat

আজ ২৩ মে বুধবার ২০১৮,

যৌন কেলেঙ্কারিতে স্থগিত সাহিত্যের নোবেল আন্তর্জাতিক

যৌন কেলেঙ্কারিতে স্থগিত সাহিত্যের নোবেল

যৌন অসদাচরণের অভিযোগে এবছর সাহিত্যে নোবেল পুরষ্কার ঘোষনা করবে না। ‘হ্যাশট্যাগ মি টু’-র সৌজন্যে সমালোচনার মুখে পড়ে সুইডিশ অ্যাকাডেমি। তাদের উদ্ধৃত করে শুক্রবার এখবর জানায় বিবিসি। শুক্রবার এক বিবৃতিতে সুইডিশ অ্যাকাডেমি জানিয়েছে, ২০১৮ সালের পুরস্কারটি তারা ‘রিজার্ভড প্রাইজ’ হিসেবে ২০১৯ সালের পুরস্কারের সাথে ঘোষনা করতে চায়।

অ্যাকাডেমির একজন সদস্যের স্বামীর বিরুদ্ধে ওঠা যৌন হয়রানির তদন্তে অ্যাকাডেমির ভূমিকা প্রশ্নের মুখে পড়ার পর সঙ্কটময় একটি সময় পার করছে প্রতিষ্ঠানটি।  

ওই সদস্যের পাশাপাশি অ্যাকাডেমির প্রধান সারা দানিয়ুসসহ মোট চারজন এ পর্যন্ত পদত্যাগ করেছেন। ফলে অ্যাকাডেমিতে নতুন কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে তৈরি হয়েছে কোরাম সঙ্কট।

সুইডিশ অ্যাকাডেমি বিবৃতিতে বলেছে, “সদস্য কমে আসায় এবং আস্থার সঙ্কট তৈরি হওয়ার প্রেক্ষাপটে অ্যাকাডেমির এই সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে।” 

ফরাসি আলোকচিত্রী জাঁ ক্লোদ অ্যারানাল্টকে নিয়েই সমস্যার শুরু। তার বিরুদ্ধে অ্যাকাডেমির কর্মকর্তা সহ একাধিক ব্যক্তিকে যৌন হেনস্থার অভিযোগ ওঠে।

এই তথ্য প্রথম ফাঁস করে সুইডেনের একটি সংবাদপত্র। প্রসঙ্গত, সুইডিশ একাডেমি থেকে পদত্যাগ করা ছয় সদস্যের একজন কবি ক্যাটরিনা ফ্রসটেনসনের স্বামী হলেন এই অ্যারানাল্ট।

গত নভেম্বরে ‘হ্যাশট্যাগ মি টু’ আন্দোলনে ১৮ জন মহিলা অ্যারানাল্টের বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ আনে। আর এ কারণেই কিছুদিন আগে, অ্যাকাডেমির ৬জন সদস্য পদত্যাগ করেন। তাঁদের মধ্যে রয়েছেন সংস্থাটির প্রধান সারা ডানিয়াসও। এই ধারাবাহিক পদত্যাগের কারণে ২৩০ বছরের পুরনো এই প্রতিষ্ঠানটির কাজে ব্যাঘাত ঘটছে। 
২০১৮সালে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার দেওয়া হবে কি না, তা নিয়ে আলোচনা করতে বৃহস্পতিবার বৈঠকে বসেন প্রতিষ্ঠানের বাকি ১০ জন সক্রিয় সদস্য।

সুইডিশ একাডেমির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, আগামী বছর ২০১৮ ও ২০১৯ সালের দুটি পুরস্কার একসাথে দেওয়া হবে। ১৯০১ সালে নোবেল পুরস্কার দেয়া শুরু হবার পর থেকে এ পুরস্কার ঘিরে এটাই সবচেয়ে বড় কেলেঙ্কারি।