Opu Hasnat

আজ ২৪ মে বৃহস্পতিবার ২০১৮,

“চুরি আবার সিনা জুড়ি”-

গজারিয়ায় মাদক বিক্রিতে বাধা দেয়ায় সম্মানিত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দায়ের মুন্সিগঞ্জ

গজারিয়ায় মাদক বিক্রিতে বাধা দেয়ায় সম্মানিত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দায়ের

“চুরি আবার সিনা জুড়ি”-এ প্রতিপাদ্যকে সত্য প্রমান করেছেন মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলায় জসিম উদ্দিন নামে (৪০) এক চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। মাদক বিক্রিতে বাঁধা দেয়ায় এলাকার সম্মানিত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে থানায় পাল্টা মিথ্যা অভিযোগ দায়েরের অভিযোগ করার ওই মাদক ব্যবসায়ী।

উপজেলার সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মাহমুদুল হাসান জানায়, শুক্রবার সন্ধ্যার দিকে গজারিয়া উপজেলার পুরাণ বাউশিয়া এলাকার মৃত চুন্নু মিয়ার ছেলে চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী জসিম উদ্দিন (৪০) একই এলাকার ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক হারুন সিকদারের বাড়ীর সামনে দাঁড়িয়ে সিএনজি যোগে মাদক বিক্রি করছিলেন। 

এসময় এলাকার ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক হারুন সিকদার ও মসজিদের মুসুল্লিসহ এলাকাবাসীরা একত্রিত হয়ে জসিমকে মাদক বিক্রিতে বাধাঁ দিলে ওই মাদক ব্যবসায়ী জসিম মাদক ব্যবসার কাজে ব্যবহারকৃত চালকসহ সিএনজি রেখে পালিয়ে যায়। এ ঘটনা তাৎক্ষনিক এলাকার ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক হারুন সিকদার ও মসজিদের মুসুল্লিরা গজারিয়া থানা-পুলিশকে অবগত করেন।
 
এদিকে এ ঘটনায় ওই মাদক ব্যবসায়ী শুক্রবার রাত ১১টার দিকে ওই মাদক ব্যবসায়ী জসিম বাদি হয়ে গজারিয়া থানায় ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক হারুন সিকদারের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

এ বিষয়ে ব্যবসায়ী হারুন সিকদার জানান, মাদক ব্যবসায়ী জসিম থানা-পুলিশ ও সাংবাদিকদের নাম ভাঙ্গিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ মাদক ব্যবসার পাশাপাশি এলাকার বিশিষ্ট ব্যাক্তিদের টার্গেট করে মিথ্যা হামলা-মামলার ভয়ে ফেলে অর্থ হাতিয়ে নেয়া ও প্রভাব বিস্তার করে আসছে। এরই সুত্র ধরে একই উদ্যেশ্যে শুক্রবার সন্ধ্যায় আমার বাড়ীর সামনে অবস্থান মাদক বিক্রি করার সময় আমার সামনে পরে গেলে জসিমকে এলাকায় মাদক বিক্রি করতে নিষেধ করি। পরে আমাকে একা পেয়ে আমার কাছ থেকে অর্থ-আত্মসাৎের উদ্যেশ্যে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও মারধর করতে চাইলে প্রান রক্ষার্থে আমার আত্মচিৎকারে পাশের মসজিদের মুসল্লি সহ এলাকার লোকজন তাকে ধাওয়া দিলে পালিয়ে গিয়ে রাতে আমাদের বিরুদ্ধে থানায় মিথ্যা অভিযোগ করে। 

এ মাদক ব্যবসায়ী জসিমের হয়রানির স্বীকার গজারিয়া এলাকার হাফেজ আহম্মেদ, এনামুল হক সিকাদার, মমিন মাষ্টার, আবু হানিফ মাষ্টার জানান, মাদক ব্যবসায় জসিম ও তার ছোট ভাই কামরুল ইসলাম প্রকৃতভাবে উপজেলা জামায়াতের সক্রিয় সদস্য থাকা সত্বেও স্থানীয় প্রভাবশালী মাদকের গডফাদারদের ছত্রছায়ায় থেকে কিভাবে দিব্বি মাদক ব্যবসা চালিয়ে অর্থ সংগ্রহ করে গোপনে উপজেলা জামায়াতের কার্য্যক্রম পরিচালনা করছেন বলে জানা গেছে। তার বিরুদ্ধে গজারিয়া থানাসহ বিভিন্ন থানায় অস্ত্র মামলা, চাঁদাবাজি, মাদক, অর্থ আত্মসাৎ মামলাসহ একাধিক মামলা রয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। 

এ বিষয়ে জসিম উদ্দিনের সাথে যোগাযোগ করা হলে সে বলেন, আমি কোন মাদক বিক্রি ও জামায়াতের সাথে জড়িত নাই। আমার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সম্পুর্ন মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন। শুক্রবার সন্ধ্যায় হারুন সিকদারের বাড়ীর সামনে সিএনজি যোগে আসার সময় এলাকাবাসী পরিকল্পিত ভাবে তার উপর হামলা করে। জসিম তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের কথা অস্বীকার করেছে।

এ প্রসঙ্গে গজারিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি হারুন-অর রশিদ জানান, জসিম বাদি হয়ে থানায় একটি অভিযোগ করেছে। এরই প্রেক্ষিতে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে সঠিক তদন্ত করে এ প্রতিবেদককে জানান, অভিযুক্ত এলাকার ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক হারুন সিকদার একজন দানবির ও ভাল মনের মানুষ বলে পুলিশের তদন্তে এলাকাবাসী জানিয়েছেন। জসিমের অভিযোগ মিথ্যা বলে প্রাথমিক তদন্তে পাওয়া গেছে।