Opu Hasnat

আজ ২৬ এপ্রিল বৃহস্পতিবার ২০১৮,

মুকসুদপুরের জলিরপাড়বাসী মা-মেয়ের হাত থেকে বাঁচতে চায় গোপালগঞ্জ

মুকসুদপুরের জলিরপাড়বাসী মা-মেয়ের হাত থেকে বাঁচতে চায়

গোপালগঞ্জ জেলার মুকসুদপুর উপজেলার দক্ষিণ জলিরপাড় গ্রামের ইলিয়াস শেখের স্ত্রী নাজমা বেগম ও তার মেয়ে বিউটি বেগমের হাত থেকে বাঁচতে চায় এলাকাবাসী। এ ব্যাপারে মো: আবুল কালাম শিকদার নামে এক ব্যক্তি অভিযোগ করেছেন। মা-মেয়ের অত্যাচার ও নানা অপকর্মে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে এলাকার সাধারণ মানুষ। এলাকার নিরীহ লোকজনকে একের পর এক মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করছে ওই দুই নারী। শুধু তাই নয়, তার মেয়ে বিউটি বেগম দেহ ব্যবসার পাশাপাশি ইমো’র মাধ্যমে মোবাইল ফোনে উলঙ্গ ভিডিও চিত্র দেখিয়ে সম্পর্কের নামে সাধারন মানুষকে ব্লাকমেইল করে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে বলেও অভিযোগ রয়েছে।

মা নাজমা বেগম ও তার মেয়ে বিউটি বেগমের অপকর্মে কেউ বাঁধা দিলে তাকে নারী নির্যাতন ও ধর্ষণ মামলার ভয় দেখানো হয়। সসম্প্রতি কাতার প্রবাসী এক যুবকের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। তাদের ভয়ে গ্রামের অনেকেই মান-ইজ্জত নিয়ে চরম শঙ্কার মধ্যে রয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক হোটেল ব্যবসায়ী বলেন, বাইরের থেকে লোকজন বাড়িতে এনে মা-মেয়ে নানা অনৈতিক কাজ করছে। তাদের কারণে আমরা এলাকাবাসী খুবই লজ্জা পাই। মা-মেয়ের এহেন অনৈতিক কর্মকান্ডের কারণে এলাকার ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে।

ওই গ্রামের সালাম শেখের কাছে নাজমা বেগম ও বিউটি বেগমের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ওরা খুবই বাজে লোক। কেউ কিছু বললে তাকে ধর্ষণ মামলা দেয় এবং অবৈধ ব্যবসা করে এলাকার পরিবেশ নষ্ট করছে। কিন্তু আমরা গ্রামবাসী মান সম্মানের ভয়ে কিছু বলতে পারি না।

এ ব্যাপারে নাজমা বেগমের সাথে কথা হলে তিনি এসব সকল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এলাকার লোকজন আমাদের বিরুদ্ধে শুধু শুধু এ সব মিথ্যা কথা বলছে।

এ ব্যাপারে জলিরপাড় পুলিশ ক্যাম্পে একাধিক অভিযোগ দিয়েও কোন প্রতিকার পায়নি স্থানীয়রা। এ বিষয়ে মুকসুদপুর থানার জলিরপাড় পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ নব কুমার ঘোষ অভিযোগ প্রাপ্তির কথা স্বীকার বলেন, ওই দুই নারীর ব্যাপারে প্রায়ই নানা ধরণের অভিযোগ শুনি। তাদেও বিরুদ্ধে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা নেয়া হবে।