Opu Hasnat

আজ ১৬ অক্টোবর মঙ্গলবার ২০১৮,

মালিপাখির এক গুচ্ছ ছড়া-কবিতা শিল্প ও সাহিত্য

মালিপাখির এক গুচ্ছ ছড়া-কবিতা

বাউল কিশোর

ফুল গাঁয়ে পাখি সব গানে মশগুল।
ভুলভুলো মেঠো পথ রঙিন বিপুল!

ঘ্রাণ ছোটে চারিদিকে । হৃদি আনচান!
গান দিয়ে মোড়া এই অলীক বাগান!

আজ বড় ঝলমলে কিশোরীর সাজ !
আজ প্রজাপতি বোনে মনের কোলাজ -- !

তারপরে সেই ভাষা, কিযে নাম তার ?
ঝাড়বাতি ভালোবেসে, ছড়ায় বাহার !

ঘাস, মতি আর এক প্রিয় অবকাশ  !
হাঁসভূমি ছুঁয়ে খোঁজে নাচের আকাশ ---  !

খোড় বলে কাছে আয়, কিরে নাম তোর  ?
ভোর বলে , আমি সেই বাউল কিশোর  !

****************

পারাপার

গুলবাগে ফুটে আছে তুলতুলে ফুল !
ফুলটুসি পাখি নাচে খুশি যে বিপুল !!

জুঁই মাসি দুলে দুলে গোনে এক, দুই  !
ভুঁই থেকে মাটি তুলে উঠোনে পা - ধুই  !!

জলছবি নদী নাচে পায়ে বাঁধা মল  !
টলটলে স্মৃতি ওড়ে দু-কুলে প্রবল  !!

জুলজুলে রাঙা রোদে কি যে মশগুল  !
বুলবুলি বাঁশি আর উদাসী পুতুল  !!

টুকটুকে মুখ খানি রাশি রাশি সুখ  !
বুক ভরে হাসে যেন মাধুরী ঝিনুক  !!

ঝালকাঠি গেলে মেলে বাসমতি চাল  !
পালতোলা মেঘ আঁকে মালতী সকাল  !!

হই হই ছেলে বেলা সোনাঝুরি খই  !
চই চই হাঁস ডাকে, সাঁকোটি পেরোই  !!

*****************

ঠিক যেখানে

পুনু --- পুনু --- কোথায় পুনু  ? ওইতো  কবি, ডাকো !
এপার -- ওপার মাঝখানে সেই রূপসা নদীর সাঁকো  !

রঙ নেমেছে হরিণ ক্ষেতে,  ডাকছে কি এক পাখি  !
আপন মনে চাঁদের আলোয় একলা জেগে থাকি  !

শিউলি পাতা দুলছে কি যে  !  চারটি জবার কুঁড়ি !
বলছে আবার চলনা সবাই ওড়না  হয়ে উড়ি  !

চলনা খেলি চু - কিত কিত   ! খেলতে খেলতে শেষে,
 ছড়িয়ে যাবো আমরা সবাই মেঘনা মেঘের দেশে  !

হারিয়ে যাবো চলনা  সবাই সবুজ টিলার ঘাসে  !
ঠিক যেখানে জলছবি ঘর নাচতে নেমে আসে  !

******************

খুঁজিস শুধু তুই

সবেদা গাছ । রূপোলি নাচ । ফুটলো বেলি জুঁই !
কেমন করে মাছরাঙা হোস, বলতে পারিস তুই ?

তোর বুকে কি ঝুমঝুমি ভোর নাচলে বাতাস বয় ?
ভূবন ডাঙায় এখনও সেই রঙের মেলা হয় ?

নীল পরীরা ওড়ায় জানি রাতের "তারা হাঁস" !
হৃদয় পুরের পথিক আমি কার কাছে খোঁজ পাস ?

পাতায় পাতায় রোজ ঢালি রোজ নামতা শেখার ভোর !
এই কথাটাও ভাবলে বুঝি নেই অজানা তোর !

সবেদা গাছ । রূপোলি নাচ । ফুটলো বেলি জুঁই !
কেউ না ভালোবাসুক আমায় , খুঁজিস শুধু তুই !

****************

প্রীতির রাখী
 
জরির টোপর, পাল তোলা মেঘ, একটু তাকাও যদি -- !
দেখবে হেসে টাপুর-টুপুর বইছে গানের নদী -- !

তার পাশে সব এতোল বেতোল নাম না জানা গাছে !
হৃদয় পুরের আলুক শালুক ফুলরা ফুটে আছে !

জল চিক চিক, ঢেউ চিক চিক, ঝিনুক পুঁতির খোঁজে !
একটা মানুষ ঢেউ হয়ে যায় । কেউ কি সেটা বোঝে ?

কেউ বোঝেনা, কেউ বোঝেনা, নীল পালকে মুড়ে ; 
লোকটা ক্রমেই যায় হারিয়ে দূরের থেকে দূরে ---  !

দিন থেকে রাত ছুটতে ছুটতে মন ভোলা তার ছবি ,
সবুজ পুরের হাওয়ায় ভাসে, ঠিক যেন সে কবি !

তুমিই তবে জরির টোপর, পাল তোলা মেঘ পাখি,
লোকটাকে রোজ পরিয়ে দিও একটি প্রীতির রাখী !

****************

দিদিমনি

বকুল আলো ছড়িয়ে থাকে সারা উঠোন ভ'রে,
দিদিমনির চোখের তারায় বুলবুলি দিন ওড়ে -- !

পাহাড় চূড়োর পালক রাশি টাপুর-টুপুর ঝরে ।
দিদিমনির মনের বাগান কেমন যেন করে ।

আকাশ, আকাশ, আকাশমনি, ধান ঝুর ঝুর নদী !
এসো, এসো আলাপ ছড়াই দিদিমনির যদি ---

মনের ডানায় আবার লাগে নতুন কুঁড়ির আশা ।
সেটাই হবে সবচে ভালো । দুলবে ভালোবাসা ।

এমনি করে ঢেউ ভেসে যায় । একটা আবার এসে,
রোজ দুপুরের উদাস হাওয়ায় বকুল পাতায় মেশে !

বকুল আলো ছড়িয়ে থাকে সারা উঠোন ভ'রে !
দিদিমনির চোখের তারায় বুলবুলি দিন ওড়ে !

**************

বুনন

রেশম কিশোরী ঘুড়ি সারারাত নেচে,
পাতার পোষাকে শুধু মোহর বুনেছে  -- !

বোধের পরাগে ওড়ে বোধিময় মাটি,
বাঘের দু-চোখে নাচে আতর ঘোড়াটি !

বিভোর বাঁশিটি বাজে ! দিধা হীন ছেনি,
তুখোড় স্বভাবে খোদে, স্বভাব ঘোচেনি  !

অমর করেছে তাকে চলমান ঘড়ি  !
অমল আঁধারে জাগে নিঝুম নগরী  !

সময় চলেছে হেঁটে কাল হতে কালে  !
নতুন নদীটি নাচে নতুন সকালে  !

দু-হাত বাড়ালে ‌"তারা" দোলে মন কিযে  !
কোথায় হারাবো বলো ? পাগল আমি যে  !

রাখেন যাহাকে তিনি কে যে তাকে মারে  ?
সোনার ফসল দোলে হৃদয় খামারে  !

রেশম কিশোরী ঘুড়ি সারারাত নেচে,
পাতার পোষাকে শুধু মোহর বুনেছে  ---  !

****************

এই ছেলেটা

এই ছেলেটা তোর কি বুকে চরকি ঘোরে রোজ --- ?
আধপেটা খাস আর বাকিটা স্বপ্নে করিস খোঁজ ?

মেঘ পরীদের পাস কি দ্যাখা, চাঁদ পরীদের ঘর ?
আবীরে ডুব দিয়েছে দ্যাখ রাত জাগা এক চর !

চর - না আকাশ একটু তাকাস যেমনি করে তুই ,
তেমনি করে ফুল নগরীর তিনটি হরিণ জুঁই ;

আউলি নাচে বাউলি নাচে শাউলি নাচে আর
রঙ গুলো সব ছড়িয়ে দিয়ে সাজায় নদীর পাড় !

রঙ ধরে তুই হাঁটিস বুঝি ?  নেই পথে ফের যাস ?
এই ছেলেটা তোর কি বুকে চরকি বারোমাস --- ?

***************

শাপলা পুরের গন্ধ

চাও কি তুমি আকাশ ছুঁতে ? কেউ যে আকাশ চায়না !
তাই কি তুমি অমন করে ধরলে আতর বায়না ?

বেশ তো নাচো নুপুর পরে, বেশ তো নামাও বিষ্টি --
নামটা দারুন মিষ্টি ! নামটা দারুন মিষ্টি !

নামটা আবার চৌকো ! নামটা আবার চৌকো !

দুলবো আবার সবাই মিলে, দুলবে কথার দুলকি ---- !
উড়বে টগর, গোলাপ, গাঁদা, উড়বে আলোর ফুলকি !

ঘুরবে কথার চরকি, আসবে নতুন ভোর কি ?

আয় আয় চাঁদের পাহাড় !  আয় আয় সাগর পালক !
আয় আয় পাতার ভুবন, আয় আয় রাখাল বালক !

দুলছে হাসি, মেঘনা পাড়া । দুলছে বাঁশি । তিনটি তারা--- !
দুলছে তারা -- দুলছে তারা --- দুলছে তারা ---

দুলছে দ্যাখো রামধনু মন, দুলছে নাচের ছন্দ !
মাখছে গায়ে টুনটুনি দিন শাপলা পুরের গন্ধ !