Opu Hasnat

আজ ১৯ আগস্ট রবিবার ২০১৮,

মোরেলগঞ্জে একটি পুলের অভাবে সহস্রাধিক শিক্ষার্থীর দুর্ভোগ! বাগেরহাট

মোরেলগঞ্জে একটি পুলের অভাবে সহস্রাধিক শিক্ষার্থীর দুর্ভোগ!

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে একটি পুলের অভাবে দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে সহস্রাধিক শিক্ষার্থী সহ এলাকার শত শত গ্রামবাসী। ঝুকি নিয়ে চলাচল করতে হয় শিশু শিক্ষার্থীদের। জোড়াতালি দিয়ে পুলটি চলাচলের জন্য বারবার ব্যর্থ চেষ্টা চালানো হচ্ছে। 
    
উপজেলার নিশানবাড়িয়া ইউনিয়নের হোগলপাতি ও বারইখালী ইউনিয়নের গোয়ালবাড়িয়া গ্রামের মধ্যবর্তী প্রবাহমান খালের উপর এ পুলের অবস্থান। পুলটি দীর্ঘদিন যাবত নড়বড়ে অবস্থায় পড়ে আছে। শিক্ষার্থী সহ এলাকারবাসী প্রতিদিন ঝুকি নিয়ে যাতায়াত করছে। এ পুল দিয়ে প্রতিদিন স্কুল কলেজ মাদ্রাসার সহস্রাধিক শিক্ষার্থী যাতায়াত করে। বিশেষ করে জিউধরা ইউনিয়ন ও বারইখালী ইউনিয়নের তেতুলবাড়িয়া, গোয়ালবাড়িয়া, সূতালড়ী গ্রামের লোকজনের উপজেলা সদরে আসার একমাত্র সহজ পথ। বারইখালী ইউনিয়ন পরিষদ ও চৌধুরী কাছারি হয়ে মোরেলগঞ্জে সদরে পৌছাতে যে সময় লাগবে তার থেকে হোগলপাতি পুল পেড়িয়ে আসতে অর্ধেকের কম সময় লাগে। যার কারনে জিউধরা ও বারইখালী ইউনিয়নের অধিকাংশ লোকজন ও শিক্ষার্থীদের মোরেলগঞ্জ বাজার সহ স্কুল কলেজ মাদ্রাসায়, উপজেলার দাপ্তরিক কার্যক্রম করতে এ পথেই বেশি যাতায়াত করতে হয়।  পুলটির উভয় পাশের নিরাপত্তা রেলিং না থাকায় বিশেষ করে শিশুদের চলাচলের জন্য অত্যন্ত ঝুকিপূর্ণ। ভোগান্তি পোহাচ্ছে মোটর সাইকেল ভ্যানগাড়ী সহ অন্যান্য যানবাহন মালিক যাত্রীরা।

তাছাড়াও এ পুলের উভয় পাড়ে রয়েছে এইচ ভি এস হাজী নূরউদ্দিন দাখিল মাদ্রাসা, রয়েছে একাধিক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সাইক্লোন সেল্টার, একাধিক মাধ্যমিক বিদ্যালয় , মসজিদ, মাদ্রাসা, বাজার সহ নানা সেবামূলক প্রতিষ্ঠান। এজন্য নানা কারনে এ পুলটি গুরুত্ববহন করে। একাধিকবার  ইউনিয়ন পরিষদের অর্থায়নে পুনসংস্কারের নামে অর্থ ব্যায় হচ্ছে । অথচ গুরুত্ব বিবেচনায় এখানে প্রয়োজন ঢালাই ব্রিজ।