Opu Hasnat

আজ ১৪ ডিসেম্বর শুক্রবার ২০১৮,

ব্রেকিং নিউজ

নিদাহাস ট্রফি : পরাজয় দিয়ে টাইগারদের যাত্রা শুরু খেলাধুলা

নিদাহাস ট্রফি : পরাজয় দিয়ে টাইগারদের যাত্রা শুরু

নিদাহাস ট্রফিতে নিজেদের প্রথম ম্যাচে হারের হতাশা নিয়েই মাঠ ছাড়তে হলো বাংলাদেশকে। বোলারদের ভালো নৈপুণ্যের পর শিখর ধাওয়ানের অর্ধশতকে ভর করে ভারত পেয়েছে ৬ উইকেটের সহজ জয়।

শ্রীলঙ্কায় এবারের নিদাহাস ট্রফিতে ভারতীয় দলটা অনেক দুর্বল। কোহলি নেই, ধোনি নেই। নেই আরও কয়েকজন সিনিয়র ক্রিকেটার। তবুও, এই দুর্বল দলটির সামনে দাঁড়াতে পারলো না বাংলাদেশ। টাইগারদের দলে হয়তো সাকিব আল হাসান নেই; কিন্তু বাকি পুরো শক্তি তো ছিল। তারপরেও বাংলাদেশকে হেসে-খেলেই বলতে গেলে রোহিত শর্মার দল হারিয়েছে ৬ উইকেটের ব্যবধানে। সে সঙ্গে নিদাহাস ট্রফিতে বাংলাদেশের যাত্রাটা শুরু হলো পরাজয় দিয়েই।

ভারতের বিপক্ষে নিদাহাস ট্রফিতে নিজেদের প্রথম ম্যাচে শুরুতে ব্যাটিং করে স্কোরবোর্ডে বড় সংগ্রহ জমা করতে পারেনি বাংলাদেশ। ভারতকে দিয়েছে ১৪০ রানের টার্গেট। সেই লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ঝড়োগতিতে করলেও চতুর্থ ওভারে রোহিত শর্মার উইকেট হারিয়েছিল ভারত। বাংলাদেশকে প্রথম সাফল্যটি এনে দিয়েছেন মুস্তাফিজুর রহমান। এক ওভারের বিরতিতে ঋষভ পাণ্ডের উইকেট হারায় ভারত। পাণ্ডেকে বোল্ড করে সাজঘরে পাঠিয়েছেন রুবেল হোসেন। তবে আরেক ওপেনার শিখর ধাওয়ান খেলেছেন ৫৫ রানের ইনিংস। শেষপর্যায়ে সুরেশ রায়নার ২৮ ও মনিশ পান্ডের অপরাজিত ২৭ রানের ইনিংসে ভর করে ৬ উইকেটের সহজ জয় তুলে নিয়েছে ভারত।

বাংলাদেশের পক্ষে দুটি উইকেট নিয়েছেন রুবেল হোসেন। একটি করে উইকেট গেছে মুস্তাফিজুর রহমান ও তাসকিন আহমেদের ঝুলিতে।

টস হেরে ব্যাট করতে নামা বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা বলতে গেলে দাঁড়াতেই পারেনি ভারতীয় বোলারদের সামনে। কিছুটা প্রতিরোধ গড়েছিলেন সাব্বির রহমান আর লিটন কুমার দাস। ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় ভারতীয়দের সামনে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৩৯ রান তুলতে সক্ষম হয় বাংলাদেশ। ৩৪ রান করেন লিটন দাস এবেং ৩০ রান করেন সাব্বির রহমান।

তামিম ইকবালের সঙ্গে সৌম্য সরকার ওপেনিংয়ে শুরুটা করেছিলেন ভালোই। হঠাৎই ভুল করে বসেন বাঁহাতি এই ওপেনার। ১২ বলে ১৪ রান করে পেসার জয়দেব উনাদকাতের বলে শর্ট ফাইন লেগে যুজবেন্দ্র চাহালকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন তিনি।

এরপর শার্দুল ঠাকুরের ওভারের তৃতীয় বলটায় তামিম ইকবালকে আউট দিয়ে দিয়েছিলেন আম্পায়ার। রিভিউ নিয়ে এলবিডব্লিউ থেকে বেঁচে যান দেশসেরা এই ওপেনার। পরের দুই বলে দুটি বাউন্ডারিও মারেন তিনি।

কিন্তু ওভারের শেষ বলে আরেকটু চড়াও হতে গিয়ে সৌম্যর মতোই শর্ট ফাইন লেগে ক্যাচ দিয়ে বসেন তামিম। ২ চারের সাহায্যে বাঁহাতি এই ওপেনার করেন ১৬ বলে ১৫ রান।

ইনিংস বড় করতে পারেননি মুশফিকুর রহীমও। দারুণ খেলতে থাকা এই ব্যাটসম্যান বিজয় শঙ্করকে এগিয়ে এসে হিট করতে চেয়েছিলেন। বলটা ব্যাটে আলতো ছোঁয়া পেয়ে চলে যায় ভারতীয় উইকেটরক্ষক দিনেশ কার্তিকের হাতে। আম্পায়ার আউট দেননি। সঙ্গে সঙ্গেই রিভিউ নিয়ে নেন কার্তিক।

রিভিউতে ব্যাটে-বলে সংযোগের প্রমাণ মেলায় আউট হয়ে ফিরতে হয় মুশফিককে। ১৪ বলে তিনি করেন ১৮ রান। মারকুটে এই ইনিংসে ছিল ২ চার আর ১টি ছক্কার মার।

এরপর মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। দলের ভারপ্রাপ্ত এই অধিনায়ক ৮ বল খেলে করেন মাত্র ১ রান। শঙ্করের দ্বিতীয় শিকার হয়ে ফিরেন তিনি।

লিটন দাস আর সাব্বির রহমান বাংলাদেশকে ১০০ রানের ঘর পার করে দিয়েছেন কোনোমতে। তবে যুজবেন্দ্র চাহালকে তুলে মারতে গিয়ে আউট হয়ে যান দারুণ খেলতে থাকা লিটন। ৩০ বলে ৩ চারে ৩৫ রান করেন ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান।

মেহেদী হাসান মিরাজ ৩ বলে ৩ রান করে ফেরার পর ইনিংসের একদম শেষভাগে এসে ২৬ বলে ৩ বাউন্ডারি আর ১ ছক্কায় ৩৫ রান করে আউট হয়েছেন সাব্বির রহমান। ভারতের পক্ষে ৩৮ রানে ৩টি উইকেট নিয়েছেন পেসার জয়দেব উনাদকাত।