Opu Hasnat

আজ ১৯ ফেব্রুয়ারী সোমবার ২০১৮,

ফরিদপুরে ইমাম উদ্দিন আহমাদের মৃত্যু বার্ষিকী পালিত ফরিদপুর

ফরিদপুরে ইমাম উদ্দিন আহমাদের মৃত্যু বার্ষিকী পালিত

মরহুম ইমাম উদ্দিন আহমাদ ছিলেন একজন আদর্শ পুরুষ। তিনি ছিলেন বঙ্গবন্ধুর সাহচর্য। তিনি ছিলেন সত, সাহসী, নির্ভিক, দারিদ্রতাকে জয় করে সমাজকে দারিদ্র মুক্ত করার এক অদম্য সৈনিক। সোমবার সকাল এগারো টায় ভাষা সৈনিক, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক মরহুম ইমামা উদ্দিন আহমাদের ১২ মত মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে কমলাপুর উচ্চ বিদ্যালয় (ইমামবাগ) আয়োজিত রন সভায় প্রধান অতিথি সরকারি রাজেন্দ্র কলেজ অধ্যক্ষ অধ্যাপক মোশারর্ফ আলী এসব কথা বলেন।

সভার প্রধান অতিথি আরো বলেন, মরহুম ইমাম উদ্দিন আহমেদ ফরিদপুর বাসীর জ্যন আদর্শ, অনুকরনীয়। তিনি ফরিদপুরের শিক্ষা ও সামজিক সহ সার্বিক উন্নয়নের বলিষ্ট ভূমিকা পালন করেছে। ইতিহাসে তার নাম চিরস্বরনীয় হয়ে থাকবে।

বিশেষ অতিথি সরকারি সারদা সুন্দরী মহিলা কলেজ অধ্যক্ষ অধ্যাপক সুলতান মাহমুদ হিরক তার বক্তব্যে বলেন, ইমাম উদ্দিন আহমাদ একজন এমন মানুষ ছিলেন যে উনার কাছ থেকে আমরা সততা, নিষ্ঠা শিকতে পারি। উনার সকল অঙ্গনে ছিল প্রখর জ্ঞান। উনি অনেক বই লিখেছেন। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে তার মত একজন সংগঠককে ফরিদপুর বাসীর তথা গোটা দেশের একটা বড় পাওয়া।

অনুষ্ঠানের সভাপতি ও মরহুমের সহধর্মীনি রুশেমা ইমাম শ্রদ্ধা ও অশ্রু জলে বলেন, তিনি আমাদের জন্য সত ও সতার আদর্শে জীবন গড়ার প্রত্যয় ব্যাক্ত করে গেছেন। তিনি স্কুল প্রতিষ্ঠা করে দেশের উন্নয়নের ভূমিকা রেখেছেন। আগামী প্রজন্মকে তার মত মানুষের আদশ্যকে অনুসরন নরা উচিত। নতুন প্রজন্মকে তাকে স্বরন রেখে তার রেখে যাওয়া কার্যক্রমকে সক্রিয় রাখতে হবে। তিনি বাংলাদেশের প্রথম সরকারের ফরিদপুরের এমপি ছিলেন। তিনি ছিলেন বঙ্গবন্ধুর সাহচর্য। তারা এক সঙ্গে দেশের কথা ভাবতেন, কাজ করতেন।

সভায় এসময় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, ইশান বালিকা বিদ্যালয়ের প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক আয়েশা খাতুন, চারন কবি এ্যাড. মোঃ আবু বকর সিদ্দিক।

এসময় আরো বক্তব্য রাখেন,  যশোর মা. ও উচ্চ মা. শিক্ষা বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান প্রফেসর এ বি এম সাত্তার, প্রফেসর এম এ সামাদ, প্রফেসর এম এ আজিজ, বেলায়েত হোসেন, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নাছিমা আহমেদ প্রমুখ। পরে বিদ্যালয়ের রচনা প্রতিযোগীতা বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার তুলে দেন অতিথিরা এবং দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে সকাল ১১ টায় মরহুমের কবরে পরিবার ও বিদ্যালয়ের পক্ষথেকে পুষ্প মাণ্য অর্পন করা হয়।

উল্লেখ্য মরহুম ইমাম উদ্দিন আহমাদ ফরিদপুরের শিক্ষা ক্ষেথে ৪৫ টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ২টি উচ্চ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা সহ অনেক সামাজিক উন্নয়ন কাজে সম্পৃক্ত ছিলেন। তিনি ১৯৫২ ভাষা আন্দোলন, ১৯৫৬ সালে মহকুমা আওয়ামী লীগ সভাপতি, ১৯৬৯ সালে গণঅভূথানে, ১৯৭০ নির্বাচনে এমপিএ এবং ১৯৭৩ সালে এমপি নির্বাজিত হয়।  তিনি ২০০৬ সালের ১২ ফেব্রুয়ালী শহরের টেপাখোলা নিজ বাড়ির সামনে এক সড়ক দূর্ঘটনায় প্রান হারান।