Opu Hasnat

আজ ২১ অক্টোবর রবিবার ২০১৮,

মুর্শিদাবাদে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত অন্তত ৩৬ আন্তর্জাতিক

মুর্শিদাবাদে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত অন্তত ৩৬

সোমবার সকালে ভারতের মুর্শিদাবাদ জেলার দৌলতাবাদে বাস দুর্ঘটনায় এদিন সন্ধ্যে পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ৩৬ জনে। এখনো নিখোঁজ রয়েছেন অনেকে।

স্থানীয় ভৈরব নদীর গোবরা খালের ভেতর পানিতে ডুবে থাকা দুর্ঘটনাগ্রস্ত বাসটিকে ওপরে তুলে আনার পর থেকেই বাড়ছে মৃতের সংখ্যা।
 
অধিকাংশ যাত্রীদের ঘুমন্ত অবস্থাতেই সলিল সমাধি ঘটেছে। এদিন দুর্ঘটনার ভয়াবহতা আঁচ করেই ঘটনাস্থলে পৌঁছে গেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সামনে দাঁড়িয়ে থেকে উদ্ধার কাজ তদারকি করেছেন তিনি। চারটি ক্রেনে ভৈরব নদীর খাল থেকে দুর্ঘটনাগ্রস্ত বাসটিকে টেনে তোলার পর থেকেই শুরু হয়েছে লাশ উদ্ধারের কাজ।

এনডিআরএফ ও সরকারি কর্মীরা দুর্ঘটনাগ্রস্ত এনবিএসটিসির বাসের পেছনের এমারজেন্সি দরজা ভেঙে মৃতদেহ বের করছেন। দৌলতাবাদের বালিরঘাটের কাছে নলিনী বাস্কে সেতুর ওপর সার্চ লাইট জ্বেলে চলছে উদ্ধারকাজ।

ভোরে দুর্ঘটনার আট ঘন্টা পর খালের পাক থেকে টেনে বের করা হলো বাসটিকে। বাসের ভেতর থরে থরে আটকে রয়েছে নিথর দেহ। ভৈরবের খালের পাড় জুড়ে শুধু কান্না, হাহাকার, আর্তনাদ আর শেষ আর্তি। একটিবার নিজেদের আপনজনের নিথর দেহকে ছুঁয়ে দেখার আপ্রাণ চেষ্টা করছেন স্বজনরা। মৃতদেহ একের পর এক উদ্ধার করে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে মুর্শিদাবাদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। এই পর্যন্ত হাসপাতালে ১৪ জনের দেহ শনাক্ত করা সম্ভব হয়েছে বলে জানা গেছে। মৃতের আত্মীয়রা পাগলের মতো হাসপাতালে মৃতদেহের খোঁজে হন্যে হয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। মৃতদের মধ্যে বেশ কয়েকজন নারী ও শিশু রয়েছে বলেও জানা গেছে। 

এদিকে, মুর্শিদাবাদের এই দুর্ঘটনায় মৃতদের পরিবারপ্রকি ৫ লাখ রুপি করে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার। পাশাপাশি গুরুতর আহতদের এক লাখ রুপি এবং অল্প আহতদের ৫০ হাজার রুপি ক্ষতিপূরণ দেবে রাজ্য সরকার।