Opu Hasnat

আজ ২২ আগস্ট বুধবার ২০১৮,

হলি আর্টিজান হামলার অন্যতম পরিকল্পনাকারীসহ আটক ৪ চাঁপাইনবাবগঞ্জ

হলি আর্টিজান হামলার অন্যতম পরিকল্পনাকারীসহ আটক ৪

হলি আর্টিজান হামলার অন্যতম পরিকল্পনাকারীসহ নব্য জেএমবির উত্তরাঞ্চল প্রধানসহ চারজনকে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলা থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

আজ (০৮ জুলাই) ভোরে উপজেলার একটি আমবাগান থেকে তাদের আটক করা হয়।

শিবগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হাবিবুল ইসলাম হাবিব জানান, গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে হলি আর্টিজানে হামলার অন্যতম পরিকল্পনাকারী সোহেল মাহফুজ ওরফে হাতকাটা মাহফুজ নামে এক জঙ্গি নেতা আছে। বাকি তিনজনের নাম জানা যায়নি। সোহেল মাহফুজ বর্তমানে নব্য জেএমবির উত্তরাঞ্চল প্রধান হিসেবে কাজ করছেন।

তিনি আরো জানান, সম্প্রতি রাজশাহীর গোদাগাড়ী ও তানোরে জঙ্গি আস্তানায় অভিযান চালিয়ে যাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে, তারা সোহেল মাহফুজের নাম বলেছেন। বিশেষ কৌশলে ভোরে তিন সহযোগীসহ সোহেল মাহফুজকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বিশেষ অ্যাপসের মাধ্যমে সোহেল মাহফুজ তার কার্যক্রম পরিচালনা করছিলেন। 

দুপুরে প্রেসব্রিফিংয়ের মাধ্যমে এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানানো হবে বলেও জানান তিনি।

উল্লেখ্য, এক বছর আগে ২০১৬ সালের ১ জুলাই হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গিরা হামলা চালিয়ে ১৭ বিদেশিসহ ২০ জনকে হত্যা করেছিল। হামলা ঠেকাতে গিয়ে জঙ্গিদের ছোড়া গ্রেনেডে প্রাণ হারিয়েছিলেন দুই পুলিশ কর্মকর্তা। 

নব্য জেএমবির শীর্ষনেতা তামিম চৌধুরী ওই হামলার অস্ত্র এবং সোহেল গ্রেনেড সরবরাহ করেছিলেন বলে পুলিশ পরে জানায়।

তামিম মাসখানেক পর নারায়ণগঞ্জে অভিযানে নিহত হলেও সোহেলকে এতদিন ধরে খুঁজছিল পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

সোহেলসহ পলাতক পাঁচজনের কারণে নজিরবিহীন এই হামলার মামলার অভিযোগপত্র আটকে আছে বলে তদন্ত সংশ্লিষ্ট পুলিশ কর্মকর্তারা বলে আসছেন।

এই পাঁচজনের মধ্যে সোহেল ছাড়া গুরুত্বপূর্ন ভাবা হচ্ছে রাশেদুল ইসলাম ওরফে র‌্যাশ ও বাশারুজ্জামান ওরফে চকলেটকে।

গুলশান হামলার তদন্তকারী কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম বলেছিলেন, গুলশান হামলার আরও আগে থেকেই জঙ্গি হিসেবে চিহ্নিত ছিলেন সোহেল মাহফুজ। তিনি জেএমবির প্রতিষ্ঠাকালীন শূরা সদস্য।

“দীর্ঘদিন আত্মগোপনে থাকা সোহেল গত দুই বছর আগে নব্য জেএমবিতে যোগ দেয় বলে গোয়েন্দারা তথ্য পেয়েছে।”

কানাডা প্রবাসী তামিম চৌধুরী নব্য জেএমবি গড়ে তোলেন বলে ‍পুলিশের ভাষ্য।